বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

বাংলাদেশের মাতৃভূমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন অদ্ভুত রাষ্ট্রনেতা ছিলেন। তিনি স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রধান নেতা হিসেবে এই দেশের স্বাধীনতা লড়াইতে অগোচর ভূমিকা পালন করেছিলেন। তাঁর প্রয়াসে বাংলাদেশ নাম দিয়ে একটি নতুন দেশের গঠন হয়েছিল যা পূর্বে পাকিস্তান প্রয়াসের এক অংশ ছিল। তিনি বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এবং পরবর্তীতে দেশটির প্রথম রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন।

২৬

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান

বাংলাদেশের মাতৃভূমি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান একজন অদ্ভুত রাষ্ট্রনেতা ছিলেন। তিনি স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রধান নেতা হিসেবে এই দেশের স্বাধীনতা লড়াইতে অগোচর ভূমিকা পালন করেছিলেন। তাঁর প্রয়াসে বাংলাদেশ নাম দিয়ে একটি নতুন দেশের গঠন হয়েছিল যা পূর্বে পাকিস্তান প্রয়াসের এক অংশ ছিল। তিনি বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী ছিলেন এবং পরবর্তীতে দেশটির প্রথম রাষ্ট্রপতি হয়েছিলেন।

শেখ মুজিবুর রহমান ১৭ মার্চ, ১৯২০ সালে বাংলাদেশের গোপালগঞ্জ জেলার টুঙ্গিপাড়া উপজেলায় জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ছোটবেলায় দক্ষিণ এশিয়ার গণতন্ত্রের অভিযানের প্রভাব পেয়েছিলেন যা তাঁকে জনপ্রিয় করে তুলেছিলো। শেখ মুজিবুর রহমান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়ন করেন এবং ছাত্রসংগঠনের একজন নেতা হিসেবে প্রকাশ পেয়েছিলেন। তিনি একটি স্বাধীন বাংলাদেশের কাতারে জনগণের সমর্থক হিসেবে প্রসিদ্ধি অর্জন করেন।

১৯৪৬ সালের বঙ্গভঙ্গের পর, বাংলাদেশ এখন পূর্ব পাকিস্তান হিসেবে পরিচিত ছিল। এই পরিস্থিতি বাংলাদেশের জনগণের স্বাধীনতা এবং সমান অধিকারের দৃঢকায় জন্মায় দিয়েছিল। শেখ মুজিবুর রহমান এই পরিস্থিতির সম্মুখীন হয়ে বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতৃত্ব করার জন্য দক্ষ হয়ে উঠলেন। তিনি অসংখ্য জনগণের মধ্যে জনপ্রিয়তা অর্জন করে তাদের একতা প্রকাশ করেন।

১৯৪৯ সালে শেখ মুজিবুর রহমান পূর্ব পাকিস্তান এয়ারফোর্সের একজন কর্মকর্তা হিসেবে চাকরি করার পর বাংলাদেশে ফিরে আসেন। তাঁর পূর্বের যাত্রা ও অভিজ্ঞতা তিনি স্বাধীনতা আন্দোলনের কাজে অনেক ভাবে সহায়ক হয়।

১৯৪৮ সালে, শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তান মুসলিম লীগের সদস্য হিসেবে বাংলাদেশ প্রজাতন্ত্রী মুসলিম লীগের অধিনে জনগণের সমর্থক হিসেবে প্রকাশ পান। তিনি বাংলাদেশের জনগণের মধ্যে স্বাধীনতা আন্দোলনের আগ্রহ তৈরি করেন এবং প্রয়াস করেন যাতে বাংলাদেশ একটি স্বাধীন দেশ হতে পারে।

১৯৬৬ সালে, শেখ মুজিবুর রহমান পাকিস্তানের নাগরিকত্ব মুক্ত করেন এবং এই দক্ষতা তাঁকে বাংলাদেশের একজন জননেতা হিসেবে প্রমোট করে। তিনি বাংলাদেশের মানুষের মাঝে একতা ও সংহতি তৈরি করেন এবং দক্ষতা এবং একতা তৈরি করেন যাতে স্বাধীনতা আন্দোলন শক্তিশালী হতে পারে।

১৯৭১ সালের ২৬ মার্চ থেকে ১৬ ডিসেম্বর পর্যন্ত বাংলাদেশের মানুষের জনগণের সাথে শেখ মুজিবুর রহমান স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রধান নেতা হিসেবে জনপ্রিয় হন। তিনি বাংলাদেশের মানুষের স্বপ্ন দেখতে সাহায্য করেন এবং তাদের শক্তিশালী করেন যাতে তারা নিজেদের মুক্ত দেশ অর্জন করতে পারে।

১৯৭১ সালের ৭ মার্চে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের শুরুতে শেখ মুজিবুর রহমান সরকারের লীডার হিসেবে বিভীষিকা পেয়েছিলেন। তিনি বাংলাদেশের মানুষের উদ্দেশ্য ও লক্ষ্য প্রকাশ করে বাংলাদেশের মানুষের সংঘর্ষমূলক প্রতিষ্ঠান গড়ে তাদের শক্তিশালী করেন।

১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের প্রথম প্রধানমন্ত্রী হিসেবে পদত্যাগ করেন। তিনি বাংলাদেশের প্রথম জনপ্রিয় রাষ্ট্রনেতা হিসেবে চিরস্মরণীয় হন। তাঁর বিখ্যাত ভাষণ “এই বাংলা আমার বলা” তিনি বাংলাদেশের জনগণের ভাষণ কোড হিসেবে মনে রাখা হয়।

১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট রাতে দেশের একটি মিলিটারি প্রতিষ্ঠান কর্তৃক শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের একাধিক সদস্যকে বিসর্জন করা হয়। এই হত্যা বাংলাদেশের জনগণের জনপ্রিয় নেতা হিসেবে শেখ মুজিবুর রহমান ও তাঁর পরিবারের বিরোধে একটি দলিল হিসেবে ব্যবহৃত হয়।

সর্বশেষ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বাংলাদেশের একজন অবিস্মরণীয় রাষ্ট্রনেতা ছিলেন। তিনি বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের প্রধান নেতা হিসেবে মানবতার প্রতি তাঁর অবদান স্মরণীয় থাকবে। তাঁর স্বপ্নের দেশ একটি প্রগতিশীল এবং সমৃদ্ধ দেশ হয়ে উঠবে তার স্বপ্ন ছিল। তাঁর কার্যকালে বাংলাদেশের একতা ও সংহতির ভাবনা জনগণের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠেছিল। তিনি প্রাচীন শহীদের অমর স্মৃতি হিসেবে ভারতীয় জনগণের মধ্যে জনপ্রিয় ছিলেন। তাঁর অমর স্মৃতি সব সময় আমরা মনে রাখবো।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.