১৫ বছর যাবত গাছতলাতেই সুখে আছেন শামসুলহক

জাকারিয়া মাহমুদ প্রিন্স
বরিশাল প্রতিনিধি।
২৯/১১/২০২০

গাছতলাতেও হাজারো সুখে থাকা যায় অবিশ্বাস্য হলেও এটাই সত্য প্রকৃত সুখ হচ্ছে মানুষের মনে,
সুখের জন্য ডুপ্লেক্স বাড়ির দরকার হয়না তা এই হাজারো কষ্টের মাঝে সুখে থাকা মানুষটাকে দেখেই বুঝাযায়।
প্রতিদিনের মতো আজও কোনো না কোনো অসহায় মানুষের পাশে দাড়াবার প্রতিজ্ঞায় ঘর থেকে বেরহই,বন্ধুর মটরসাইকেলে সমস্যা হওয়ায় বাটারখাল ওয়ার্কশপে যাই। দূুর থেকে দেখতে পাই ছোটো একটি রিখসার যন্ত্রপাতি রাখার ঘরের মতো,তার ভিতর থেকে কেউ একজন কিছু খাবার পেলাস্টিকের থালায় করে একটি কুকুরকে দিচ্ছে,
কাছে গিয়ে দেখি ৮০ উর্দি এক বৃদ্ধলোক ছোট্টএকটি ঘরের ভিতর ভাত খাচ্ছে।একটু বসার পরে কিছু মনখুলে আলাপচারীতা শুরু করলাম।কেমন আছেন জিজ্ঞেস করাতেই হেসে বললো খুবই ভালো আছি।তার হাসিই যেনো বলে দেয় আসলেই সে অনেখ সুখে আছেন,
নাম: মো :শামসুলহক হাওলাদার( চেয়ারম্যান বলে সবাই ডাকে) গ্রাম: ইউনিয়ন: চরকাউয়া,থানা: জিলা: বরিশাল সদর,দির্ঘ্য ১৫ বছর যাবত বাটারখালের এই ওয়ার্কশপের সামনে ২/৪ফিট এই ঘরটিতে বসবাস করেন,পৃথিবীতে ছেলেমেয়ে স্ত্রী বলতে কেউনেই,১৫ বছর আগে তার স্ত্রী মারা যায় সেই থেকেই এখানে তার বসবাস।৬ ভাইয়ের ভিতর শামসুল হক ৫ম,গ্রামের বাড়িতে ভাই এবং ভাইয়ের ছেলেমেয়ে অন্য আত্বীয় সজনরা বসবাস কেরন,শামসুল হক প্রতিবন্ধী হওয়ায় কেউ তেমন তার খোজ খবর নেয়নি।এক সময় প্রতিবন্ধী হওয়া সত্যেও রাজ মিস্ত্রীর সহকারী হিসেবে কাজ করতেন, বয়সের ভাড়ে এখন হার মেনে গেছে কাজ করা আর সম্ভব না, দুবেলার খাবার টুকু এখানকার লোকদের থেকে চেয়ে খায়,নিজের খাবার থেকে কিছু অংশ পশুপাখিদের বিলিয়ে দেয় এতেও নাকি তিনি শান্তি পান।
তাকে জিজ্ঞেস করি কেউ যদি তাকে দেখাশোনা খাবার থাকার ব্যবস্থা করে যাবে কিনা?যেমন বৃদ্ধাস্রম। তিনি বলেন যাবে না এখানেই অনেক সুখে আছেন,তিনি আশা করেন তার মৃত্যু যেনো এই বরিশালের মাটিতে হয় এবং তার এই সুখের নীড়ে মনের রাজপ্রাসাদেই হয়,
আসলেই তিনি সুখে আছেন নিজের মতো করে,তারপরেও কস্টটা শেষমেশ তার মুখেরদিকে মনখুলে তাকালেই দেখাযায়,তিনি কতোটা অসহায়। সবার কাছে অনুরদ নিজেদের অসহায় গরিব আত্বীয় সজনের একটু খোঁজ খবর নিন,আপনি যতই সম্মানিত বড়লোক হন তাদেরকে পরিচয় দিতে দ্বিধা করবেননা।এই শামসুল হকের মতো বহু শামসুল হক মানবেতর জীবন পার করছেন বছরের পর বছর,আসুন সবাই এগিয়ে আসি এই অসহায় শামসুল হক দের পাশে,এরাতো আমাদেরই কেউনা কেউ,একটু ভালো থাকুক শামসুলহকরা।

ছবি: জাকারিয়া মাহমুদ প্রিন্স।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.