সেজান জুস ট্রাজেডিতে নিহত অন্তত ৫৩ জন, আগুন এখনো জ্বলছে।

৪০০

মেহেদী হাসান সজীব, ডেস্ক রিপোর্টঃ

নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জের ভুলতায় হাশেম অ্যান্ড বেভারেজের সেজান জুসের কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে অন্তত ৫৩ জনের মৃত্যু হয়েছে আর আহত হয়েছে অন্তত কয়েকশত। সর্বশেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত আগুন এখনো নিয়ন্ত্রণে আসেনি। ৫ম ও ৬ষ্ট তলায় এখনও জ্বলছে আগুন।

ফায়ার সার্ভিস সুত্রে জানা গেছে, নিহতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে। আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে এখনও কাজ করছে ফায়ার সার্ভিসের ১৭টি ইউনিট। কিন্তু তাদের ক্লান্তিহীন প্রচেষ্টার পর ও যেন কিছুতেই আগুন নিয়ন্ত্রণে আসছে না। গতকাল সন্ধ্যা ৬ টায় লাগা আগুনের লেলিহান শিখার কাছে যেন অসহায় সব প্রচেষ্টা। বিশাল কারখানা ভবনের পুরোটাতেই ছড়িয়ে পড়ে আগুন।

প্রত্যক্ষদর্শী কারখানায় কর্মরত কয়েকজন জানান, নিচ তলায় থেকে আগুনের সুত্রপাত হয়ে ধাহ্য পদার্থ থাকায় মুহুর্তেই পুরো ভবনে ধীরে ধীরে আগুন ছড়িয়ে পরে। এসময় আতঙ্কে শ্রমিকরা ছুটোছুটি শুরু করে। কেউ কেউ অবস্থান নেয় ভবনের ছাদে।

এবিষয়ে ফায়ার সার্ভিস আরও জানিয়েছে, সেজান ফুড ফ্যাক্টরিত মাত্র দুইটি সিঁড়ি। এ ভবনের পিছনের দিকে যাওয়া যায় না। এছাড়া ভবনের পূর্ব ও উত্তর দিক দিয়ে ভবনে ঢোকারও কোন রাস্তা নেই। এটি আমাদের জন্য বড় প্রতিবন্ধকতা। এছাড়া আশেপাশে পানির উৎস না থাকায় আগুন নেভাতে বেগ পেতে হচ্ছে ফায়ার সার্ভিসকে।

এদিকে কারখানা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, সেকশনের ৫টি ফ্লোরে ওভারটাইম কাজ করছিলেন শ্রমিকেরা। তবে দুর্ঘটনার সময় ভবনটিতে কতজন ছিল তা নিশ্চিত হওয়া যায়নি। তবে অসমর্থিত সূত্রে জানা গেছে নিহতের সংখ্যা অন্তত ৬০-৭০ জন ছাড়িয়ে যাবে।

অন্যদিকে শুক্রবার সকালে পুলিশ ও নিখোঁজ শ্রমিকদের বিক্ষুব্ধ স্বজনদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। সকাল ১০টার দিকে কয়েকজন শ্রমিকের খোঁজ না পেয়ে বিক্ষোভ শুরু করে তাদের স্বজনেরা। পুলিশের সঙ্গে প্রায় এক ঘণ্টা সংঘর্ষ চলে। এসময় ব্যাপক ভাংচুর চালায় বিক্ষুব্ধরা। এঘটনায় পুলিশ রাবার বুলেট ও টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

100% LikesVS
0% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.