সাপধরী ইউনিয়নের যমুনাচরের মানুষের দুর্বিষহ জীবন

২৬

সিফাতুল হাসান, উপজেলা প্রতিনিধি, ইসলামপুরঃ জামালপুর-২ ইসলামপুরের পশ্চিম চরাঞ্চলের কৃষিজীবী খেটে খাওয়া মানুষজনেরা বড়ই অসহায়। তারা সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। পরিবহনের ব্যবস্থা না থাকার ফলে একজন মৃত্যু পথযাত্রী কে এভাবে ঘাড়ে করে সাই সাজিয়ে ৫ কি.মি দীর্ঘ পথ পাড়ি দিয়ে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছেন।

দুর্গম চরাঞ্চলের ৯৯% লোক কৃষির উপর নির্ভরশীল। বর্তমানে নদী শুকিয়ে যাওয়ার ফলে এবং রাস্তাঘাট না থাকায় কৃষকেরা অত্যন্ত হতাশাগ্রস্ত হয়ে পড়েছেন।

সামনে তাদের উৎপাদিত সকল ফসল যেমন, পেঁয়াজ, মরিচ, গম,ভুট্টা, বাদাম, সবজি ইত্যাদি ফসল কিভাবে বাজারজাত করবেন সেই চিন্তায় কৃষকদের রাতের ঘুম হারাম হবার উপক্রম।

বর্তমানে চরাঞ্চলে পরিবহনের একমাত্র মাধ্যম ঘোড়ার গাড়ি,৫-৭ মণ লোড দিলে ৩-৪ জন মিলে গাড়িটি ঠেলা না দিলে বালির উপর গাড়ি যেতেই চায় না। যার দরুন মানুষ অনেক কষ্ট করে প্রয়োজনীয় চাহিদা মেটাচ্ছে এবং সাথে সাথে অতিরিক্ত সময় অপচয় হচ্ছে।

কৃষক বাঁচলে, দেশ বাঁচবে, এর উপর গুরুত্ব দিয়ে যদি ৩ কি.মি বালির চরে (সাপধরী থেকে গুঠাইল বাজার) বর্তমানে ঘোড়ার গাড়ি চলাচলের লাইনে(রাস্তায়) তিন-চারটা মেশিন বরিং করে পানি দিয়ে ভিজিয়ে দেওয়া যায় এবং রাস্তার (বালির) উপর দিয়ে যদি আখের ছোবলা বিছিয়ে দেওয়া যায় তাহলেই বহুকষ্টে উৎপাদিত ফসল গুলো সহজেই বাজার জাত করতে পারবেন এবং মানুষের দুঃখ দূর্দশা কিছুটা হলেও লাঘব হবে।

তাই চরাঞ্চলবাসীর প্রাণের দাবী আমাদের মাননীয় ধর্ম প্রতিমন্ত্রী কর্মবীর আলহাজ্ব ফরিদুল হক খাঁন দুলাল এম,পি মহোদয়, উপজেলা পরিষদের সুযোগ্য চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট আব্দুন নাসের বাবুল মহোদয়, উপজেলা নির্বাহি অফিসার মাজহারুল ইসলাম মহোদয় সহ সকল নেতৃবৃন্দের কাছে সবিনয় অনুরোধ করছি-

যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করে গ্রামের অত্যন্ত গরীব দুঃখী খেটে খাওয়া মানুষের নিত্তনৈমিত্তিক কষ্টটা কিছুটা হলেও লাঘব করবেন সে প্রত্যাশায়।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.