শ্রীরামকাঠী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতির বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ

১৭

সঞ্জয় বৈরাগী,পিরোজপুর প্রতিনিধি : পিরোজপুরের নাজিরপুরে শ্রীরামকাঠী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ সভাপতি আলতাফ হোসেন ব্যাপারীর বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা, স্বজনপ্রীতিসহ নানা অভিযোগে সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, নাজিরপুরের ৮নং শ্রীরামকাঠি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনকে সামনে রেখে বর্তমান সভাপতি আলতাফ হোসেন ব্যাপারী নিজের পদ পদবী ঠিক রাখতে চরম স্বেচ্ছাচারিতা ও অগণতান্ত্রিক মানসিকতার আশ্রয় নিয়েছেন। তিনি ওয়ার্ড কমিটির সম্মেলনে নির্বাচিত সদস্যদের পদ পদবী ঘোষণা না করেই প্রতিটি ওয়ার্ড কমিটির সভাস্থল ত্যাগ করেন।

অসমাপ্ত এসব ওয়ার্ড কমিটিতে সভাপতি তার পছন্দমত হাইব্রীড, জামাত-বিএনপির লোকজনকে আর্থিক লেনদেনের মাধ্যমে ইচ্ছামত পদ-পদবী দিয়ে কমিটি গঠন করেছেন। যার ফলে আওয়ামী লীগের ত্যাগী পরিক্ষীত, যোগ্য নেতাকর্মীরা এসব ওয়ার্ড কমিটি থেকে বাদ পড়েছেন। এ ব্যাপারে সংশ্লিষ্ট ওয়ার্ড কমিটিগুলোর কাউন্সিলারদের মতামতের গুরুত্ব দেয়া হয়নি।

রবিবার সকালে নাজিরপুর প্রেসক্লাব মিলনায়াতনে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠকালে এসব অভিযোগ করেছেন শ্রীরামকাঠী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সুনিল কুমার হালদার।

তিনি অভিযোগ করে বলেন, গত ২২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত উপজেলা আওয়ামী লীগের বর্ধিত সভায় ৮ নং শ্রীরামকাঠি ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সম্মেলনের তারিখ আগামী ৯ জানুয়ারী নির্ধারিত হয়। এরই মধ্যে এই ইউনিয়নের ২নং ও ৫নং ওয়ার্ড বাদে বাকি ৭টি ওয়ার্ডের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হলেও কাউন্সিলর ও সদস্যেদের মতামত উপেক্ষা করে সভাস্থল ত্যাগ করেন। এসব ওয়ার্ডে কোন কমিটিও ঘোষণা করা হয়নি।

সুনীল কুমার হালদার আরও বলেন, ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের প্রতিটি ওয়ার্ড কমিটি গঠনে সাধারণ সম্পাদকের অনুমোদন নেওয়ার সাংগঠনিক বাধ্যবাধকতা থাকলেও বাস্তবে আমার কোন মতামত নেওয়া হয়নি।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আরও বলেন, আমি আওয়ামী পরিবারে সন্তান, আমার বড় ভাই নিখিল কুমার হালদার শ্রীরামকাঠি ইউনিয়নের সনামধন্য চেয়ারম্যান ছিলেন। তিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বও পালন করেছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান যখন নাজিপুরের মাটিভাঙ্গায় আসেন তখন আমার বড় ভাইয়ের সভাপতিত্বে তিনি সভা করেছেন।

অথচ শ্রীরামকাঠী ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আলতাফ হোসেন ব্যাপারী একজন বিতর্কিত লোক। তিনি জাতীয় পার্টির ইউনিয়ন সভাপতি ছিলেন। পরবর্তীতে সেখান থেকে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগে ঢুকে পড়েছেন। গত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে তিনি আওয়ামী লীগ মনোনিত নৌকা মার্কার প্রার্থীর বিপক্ষে গিয়ে তার ভাতিজা স্বতন্ত্র প্রার্থী মিজানুর রহমান রিপন বেপারীর পক্ষে প্রকাশ্যে কাজ করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের যুগ্ন-সাধারণ সম্পাদক মো. ইকবাল হোসেন, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. আব্দুল হান্নান মৃধা, তথ্য ও গবেষনা সম্পাদক এস এম. রোকোনুজ্জামানসহ ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের বিপুল সংখ্যক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.