শীতের শুরুতেই বরিশাল নগরীর বিভিন্ন ফুটপাতের ওলি-গলিতে জমে উঠেছে ভাপা ও চিতাই পিঠা বিক্রির ধুম

২৯

জাকারিয়া মাহমুদ প্রিন্স,বরিশাল প্রতিনিধিঃ শীতের শুরুতেই নগরীর বিভিন্ন ফুটপাতের ওলি-গলিতে জমে উঠেছে ভাপা ও চিতাই পিঠা বিক্রির ধুম। সন্ধ্যার পর পরেই পিঠা বিক্রির দোকান গুলোতে স্বাদ নিতে ভীর জমায় নানা শ্রেনী পেশার মানুষ।

সরোজমিনে দেখা যায় নগরীর বিভিন্ন ওলি-গলিতে রাস্তার মোড়ে-মোড়ে চলছে পিঠা বিক্রির ধুম। বিশেষ করে সন্ধ্যার পরেই জমে উঠে পিঠা বিক্রি। নিম্নবিত্ত পরিবারের মানুষ এসব দোকানে পিঠা বিক্রি করেন।

পিঠা বিক্রেতা সালমা,মালেক মিয়া, মেহরেুন নেছা জানান, আমরা সারাদিন বিভিন্ন কাজে ব্যাস্থ থাকি, বাড়তি আয়ের জন্য শীতকালে সন্ধ্যায় পিঠা বিক্রি করি। এসবের মধ্যে রয়েছে নতুন চালের গুড়ো ও খেজুরের গুড় দিয়ে তৈরি করা হয় ভাপা পিঠা। বেশী স্বাদের জন্য দেওয়া হয় নারিকেলের গুড়া। ভাপা পিঠা ছাড়াও ক্রেতাদের জন্য তৈরি করা হয় চিতাই পিঠা। চিতাই পিঠা খাওয়ার জন্য সরিষা, মরিচ, সুটকিসহ রয়েছে বিভিন্ন ধরনের ভর্তা দেওয়া হয় ফ্রী। প্রতি পিচ পিঠা বিক্রি করা হয় ৫ টাকায়।

পিঠা তৈরির বিষয় জানতে চাইলে মেহেরুন নেছা জানান,ভাপা পিঠা তৈরিতে একটি পাতিল ও মাঝখানে ছিদ্রযুক্ত ঢাকনা ব্যবহার করা হয়। জলন্ত চুলার উপর পাতিলে পানি দিয়ে ঢাকনা দেওয়ার পর আটা,চালের গুড়া ও কাপড় দিয়া ঢাকনার চারপাশ শক্ত করে মুড়ে দিতে হয়, যাতে গরম পানির ভাব বের না হয়।পরে ছোট একটি গোল পাত্রের মধ্যে চালের গুড়া, নারিকেলের গুড়া ও গুড় মিশিয়ে পাতলা কাপড়ের আবারনে ঢাকনার মুখে রাখা হয়। পানির গরম ভাপে নিমিষেই সিদ্ধ হয়ে যায় নতুন চালের ভাপা পিঠা।

পিঠা বিক্রেতা মালেক মিয়া বলেন, শীত আসতেই দোকানের কাজের চাপ ভেড়ে যায়। পিঠা বানানো থেকে সব কিছু করতে হয়।ক্রেতাদের চাহিদা মেটাতে আমি ৫ টি চুলায় পিঠা তৈরি করি। প্রতিদিন ১০ কেজি চালের পিঠা বিক্রি করি, বিকলে ৩টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে পিঠা বানানো ও বিক্রির কাজ।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.