রোহিঙ্গাদের ফিরিয়ে নেয়ার কথা বলেছেন দেশটির সেনাপ্রধান

৩৮

এম,এ, মামুন (আন্তর্জাতিক ডেস্ক): সেনা অভ্যুত্থানের মধ্য দিয়ে ক্ষমতা দখলের পর সোমবার টেলিভিশনে প্রথমবারের মতো ভাষণ দিয়েছেন মিয়ানমারের সেনা প্রধান মিন অং হ্লাইং। তিনি বলেন, তার সরকার মিয়ানমারের চলমান বিদেশনীতিতে কোনো পরিবর্তন আনবে না।

সেনা প্রধান বলেন, গৃহহীন(রোহিঙ্গা) ইস্যুতে বাংলাদেশের সঙ্গে আলোচনার মাধ্যমে চুক্তি বাস্তবায়ন করা হবে। গৃহহীন দের ফেরত নেওয়ার ব্যাপারে যে চুক্তি আছে, তাতেও কোনো প্রভাব পড়বে না। তিনি তার ভাষনের মধ্যে রোহিঙ্গা কথাটি উল্লেখ না করে গৃহীত বলেন।

সেনা প্রধানে বলেছেন, দ্বিপক্ষীয় চুক্তি অনুযায়ী যেভাবে গৃহহীন লোকজনকে বাংলাদেশ থেকে ফেরত আনার কথা ছিল, সেটি চলতে থাকবে। এই ভাষণের পুরো কপি ছাপা হয়েছে মিয়ানমারের রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যম দ্য গ্লোবাল নিউ লাইট অব মিয়ানমার। ভাষণের বেশিরভাগজুড়েই অবশ্য নির্বাচিত সরকারকে উৎখাত করার পক্ষে সাফাই দিয়েছেন সেনা প্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং।

রোহিঙ্গা পুনর্বাসন ইস্যুতে তিনি বলেন, মিয়ানমারের অভ্যন্তরে অস্থায়ী শিবিরে যেসব বাস্তুচ্যুত লোকজন রয়েছে, তাদের পুনর্বাসনের কার্যক্রমও অব্যাহত থাকবে। যদি দেশের স্বার্থে ক্ষতি না হয় তবে বাংলাদেশের সঙ্গে চুক্তি আলোচনার মাধ্যমে বাস্তবায়ন করা হবে। বাস্তুচ্যুত ব্যক্তিদের মধ্যে যারা গ্রহণযোগ্য, ১৯৮২ সালের নাগরিকত্ব অনুযায়ী তাদের ফেরার অনুমোদন দেওয়া হবে।

এমন সময় এই ভাষণ দেন মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের প্রধান এই ব্যক্তি, যখন দেশটিতে অভ্যুত্থানের বিপক্ষে ব্যাপক জনবিক্ষোভ হচ্ছে। কিন্তু ভাষণের বেশিরভাগ অংশজুড়েই জেনারেল মিন অং হ্লাইং ব্যাখ্যা দেন কেন এবং কোন পরিস্থিতিতে তাকে এই অভ্যুত্থান করতে হয়েছে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.