রাজা ফিরবে নিজের মত করে

৩০

ইমরান হোসেন পিয়াল,কলাপাড়া প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ ও বাঙালিদের সংবিধান ও সমাজ বিধানে সবার আগে চলিত প্রথাকে অগ্রাধিকার দেওয়া হয়। আর সেই চলিত প্রথার দুটোর কথা আমরা হরহামেশাই শুনে থাকি-
“”পুরাতন চাল ভাত বাড়ে””;” ক্ষুধার্ত বাঘের হিংস্রতা বেশি””

বাবা মায়ের আদরের ফয়সাল, যাকে আজ বিশ্ববাসী সাকিব আল হাসান নামে চিনে। লিকলিকে গড়নের যেই ছেলেটা বাংলার ক্রিকেটকে আজ বিশ্বচূড়ায় স্থান দিয়েছে, পুঁচকে দেশের মানুষকে বিশ্বাসী ও আশাবাদী হতে শিখিয়েছে,
হঠাৎ দমকা হাওয়া এসে তার ক্যারিয়ারে একটা কালো দাগ লাগিয়ে গেলো।

সেই দাগটা এতো নির্মম যে, তা শুঁকাতে সময় নিলো পাক্কা ১ টা বছর তথা ৩৬৫ দিন। সাথে নিস্তব্ধ করে দিলো কোটি বাঙালির ক্রিকেট অঙ্গন। সময়টাও বুঝি তাই অভিমান করে বসলো, করোনার কারণে দেখুন সাকিব নয়, পুরো বিশ্ব-ই স্থবির হয়ে গেলো। যেটার আচমকা আঘাত থেকে চেতনায় ফিরতে সময় গেলো পুরো একটা বছর। সাথে শুঁকিয়ে উঠলো সাকিব আল হাসানের সেই কালো দাগ।

দীর্ঘ ১১ মাসের ব্যবধানে ফিরতে যাচ্ছে বাংলার মাটিতে বৈশ্বিক ক্রিকেটযুদ্ধ। যুদ্ধের প্রধান সেনাপতিও যে সেনা-শিবিরে যোগ দিয়েছে,সেই কারণে নিশ্চিত পুরাতন উদ্যম নিয়ে যুদ্ধে নামতে প্রস্তুত টিম-বাংলাদেশ।

তবে যুদ্ধের আগে উৎসুক ক্রিকেটপ্রেমীদের নজর কাঁড়তে দেখি কিছু ক্রিকেটবোদ্ধা ও নিউজ পোর্টাল প্রশ্নও তুলেছে, এতোদিন পরে মাঠে ফিরে কি সাকিব ভাল পারফর্মেন্স দিতে পারবে? তাদের সেই প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার জন্যই আমি গ্রাম-বাংলার দুটো প্রচলিত কথা উপরে বলেছি।

সাকিব আল হাসান, যাকে ২১ শতকের এই আধুনিক ক্রিকেটের সবচেয়ে পরিণত ও মেধাবী অলরাউন্ডার ভাবা হয়, যে বাংলাদেশ তথা পুরো বিশ্বের কাছে এক পরীক্ষিত ব্যাট-বলের চৌকস যোদ্ধা তার ফর্মে থাকা নিয়ে সন্ধিহান।

পুরাতন চালে যেমন ভাত বেশি হয়, তেমনি পুরাতন, পরিণত ও পরীক্ষিত সাকিবের ফর্মে ফিরা নিয়ে কোন সংশয় থাকার কথাও নয়। সাকিব এমন একজন খেলোয়াড়, তাকে নিয়ে যতবারই কথা উঠেছে, মাঠে পারফর্মেন্স করে সেই কথার মূখে পট্টি বেঁধে দিয়েছে।
এবার ইনশাল্লাহ তার ব্যতিক্রম হবে না।

আর সাকিব আল হাসান একজন বাঘ।যে হিংস্র অবস্থায় যত আগ্রাসী, নির্জীব হয়ে থাকা পিরিয়ড থেকে ফিরার পর সে তত বেশি মারাত্মক। ক্ষুধার্ত বাঘের যেমন হিংস্রতা বেশি, তেমনি চৌকস তার তীক্ষ্ণ দৃষ্টি। প্রাপ্তির নেশায় তখন সে প্রতিপক্ষের উপর সর্বোচ্চ নিয়ে হামলে পড়ে।
সাকিব আল হাসান তার ব্যতিক্রম নয়। পুরো একটা বছরের ক্রিকেটের ক্ষিধা, নিষেধাজ্ঞার সেই ব্যাথা- যন্ত্রণায় নিজেকে পুরোটা প্রস্তুত করেই ফিরছেন।

ফিরছেন তো ফিরছেন, নিশ্চয় সেই রাজকীয়ভাবেই ফিরছেন ইনশাল্লাহ। সাকিবরা হারায় না, ফিরে আসে, বারবার ফিরে আসে। বাকিটা না হয় মাঠেই দেখা যাবে।

“”হে বীর, মাঠে নেমে পড়ো করে উন্নত মম শীর,
ব্যাট-বল হাতে ঝাঁপিয়ে পড়ো, ছারখার করে দাও বিপক্ষের শিবির।””

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.