ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা কে সেরা? পরিসংখ্যান কি বলছে

১,৪০৬

মো: মেহেদী হাসান আশিক: ডেস্ক রিপোর্ট: দৈনিক সাহসী কন্ঠ।

ব্রাজিল আর্জেন্টিনার মধ্যেকার ফুটবল ম্যাচ মানেই উত্তেজনা। ১৪ বছর পর বড় কোনো টুর্নামেন্টের ফাইনালে মুখোমুখি হতে যাচ্ছে ব্রাজিল আর্জেন্টিনা।

ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনার মধ্যে ২০০৭ সালের ১৫ জুলাই কোপা আমেরিকার ফাইনালের দীর্ঘ ১৪ বছর পরে আবার ২০২১ কোপা আমেরিকার ফাইনালে আগামি রবিবার (১১ জুলাই) মুখোমুখি হতে যাচ্ছে এই ২ দল।

দেখা নেয়া যাক ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনার পরিসংখ্যান:

ম্যাচ সংখ্যা:

এ পর্যন্ত ২ দলের ১০৭ বার মুখোমুখী লড়াইয়ে ব্রাজিলের জয় ৪৩ বার অপরদিকে আর্জেন্টিনার জয় ৩৯ ম্যাচ ড্র হয়েছে ২৫ টি ম্যাচ।

গোল সংখ্যা:

দুই দলের মুখোমুখি লড়াইয়ে জয়ের সংখ্যায় যেমন ব্যবধান সামান্য, দুই দলের করা মোট গোলের সংখ্যাতেও একই অবস্থা। ব্রাজিল আর্জেন্টিনাকে দিয়েছে ১৬৬ গোল, আর্জেন্টিনা ফিরিয়ে দিয়েছে ১৬১ গোল।

ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা লড়াইয়ে সবচেয়ে বড় জয়:

ব্রাজিলকে ৬-১ গোলে হারিয়ে বড় জয়ের রেকর্ড করেছে আর্জেন্টিনা (বুয়েনস এইরেস, ১৯৪০, কোপা জুলিও রোকা)

অপরদিকে আর্জেন্টিনাকে ৬–২ গোলে হারিয়েছে ব্রাজিল (রিও ডি জেনিরো, ১৯৪৫, কোপা জুলিও রোকা)

দুই দলের সবচেয়ে বৃহত্তম জয় এবং পরাজয়:

আর্জেন্টিনার বৃহত্তম জয়: আর্জেন্টিনা ১২-০ ইকুয়েডর (২২ জানুয়ারি ১৯৪২)
আর্জেন্টিনার বৃহত্তম পরাজয়: উরুগুয়ে ৫-০ আর্জেন্টিনা (৫ সেপ্টেম্বর ১৯৯৩)
বলিভিয়া ৬-১ আর্জেন্টিনা (১ এপ্রিল ২০০৯)
স্পেন ৬-১ আর্জেন্টিনা (২৭ মার্চ ২০১৮)

ব্রাজিলের বৃহত্তম জয়: ব্রাজিল ১০-১ বলিভিয়া (১০ এপ্রিল ১৯৪৯)
ব্রাজিল ৯-০ কলম্বিয়া (২৪ মার্চ ১৯৫৭)
বাজিলের বৃহত্তম পরাজয়: উরুগুয়ে ৬-০ ব্রাজিল (১৮ সেপ্টেম্বর ১৯২০)
ব্রাজিল ১-৭ জার্মানি (৮ জুলাই ২০১৪)

টানা বেশি জয়:

১৯৭৪ বিশ্বকাপ থেকে ১৯৭৬ সালে কোপা ডেল আতলান্তিকো পর্যন্ত টানা পাঁচ ম্যাচে আর্জেন্টিনাকে হারিয়েছিল ব্রাজিল।
১৯৭০ থেকে ১৯৮১ সাল পর্যন্ত টানা ১৩ ম্যাচে আর্জেন্টিনার কাছে হারেনি ব্রাজিল। দুদলের লড়াইয়ে টানা সবচেয়ে বেশি ম্যাচে অপরাজিত থাকার রেকর্ড এটাই। এই সময়ে আটটি ম্যাচ জিতেছে ব্রাজিল, বাকি পাঁচটি ম্যাচ ড্র হয়েছে।

 
অপর দিকে আর্জেন্টিনা সর্বোচ্চ টানা চার ম্যাচ জিতেছিল ১৯৪০ থেকে ১৯৪৫ সালের মধ্যে। এছাড়াও ১৯২৩ থেকে ১৯৩৯ সালের মধ্যে ও ১৯৯০ থেকে ১৯৯৩ সালের মধ্যে দুবার টানা ছয় ম্যাচে অপরাজিত ছিল আর্জেন্টিনা।

প্রধান শিরোপা:

প্রধান শিরোপার লড়াই ব্রাজিলের বিশ্বকাপ জয় ৫ বার আর্জেন্টিনা ২ বার।
কোপা আমেরিকা জয় আর্জেন্টিনা ১৪ , ব্রাজিল ৯।
কনফেডারেশন্স কাপ ব্রাজিল ৪,আর্জেন্টিনা ১।
প্যান আমেরিকান কাপ ব্রাজিল ২, আর্জেন্টিনা ২।

ব্রাজিলের মোট প্রধান শিরোপা জয় ২০ এবং আর্জেন্টিনার ১৯।

অপ্রধান এবং বাছাই প্রতিযোগিতা শিরোপা:

এ ক্ষেত্রে অনেক এগিয়ে ব্রাজিল তাদের জয় ৫৩ টি বিপরীতে আর্জেন্টিনার জয় ৩০ টি।

বিশ্বকাপে ২ দলের ম্যাচ হিসাব:

বিশ্বকাপের খেলা হিসাব করলে তাতে ২টি জয় নিয়ে এগিয়ে ব্রাজিল। ড্র হয়েছে ১টি খেলা অন্যটি জিতেছে আর্জেন্টিনা।

কোপা আমেরিকায় ম্যাচ হিসাব:

কোপা আমেরিকার পরিসংখ্যান হিসাব করলে বেশি জয় পেয়েছে আর্জেন্টিনা। আর্জেন্টিনার জয় ১৫টি খেলায়, ড্র হয়েছে ৮টি খেলা এবং ৯টি জিতেছে ব্রাজিল।

প্রদর্শনী খেলা:

এই দুই দলের মধ্যে ৫০ টি প্রদর্শনী খেলা অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে ব্রাজিলের জয় ১৯ টি ম্যাচ এবং আর্জেন্টিনার জয় ১৯ টি ম্যাচ,ড্র হয়েছে ১৪টি।

১৯৭০ এর দশকে অনেকটা খারাপ সময় যায় আর্জেন্টিনার। তখন তারা ১২টি খেলার মধ্যে মাত্র ১টি ম্যাচে জয় লাভ করে, ৭টিতে পরাজিত হয় এবং ৪টি খেলা ড্র হয়।

ফুটবল বিশ্বকাপে ব্রাজিলের অর্জন সমূহ :

ফিফা রেংকিংয়ে সবচেয়ে এ সবচেয়ে বেশি সময় প্রথম স্থানে ছিল ব্রাজিল (১৫০ মাস) [২০১৮ সালের তথ্য অনুযায়ী]।
টানা সবচেয়ে বেশি সময় এক নম্বরে ছিল ব্রাজিল ১৯৯৪ সালের জুলাই থেকে ২০০১ সালের এপ্রিল পর্যন্ত টানা ৮২ মাস বা ৬ বছর ১০ মাস এবং ২০০২ থেকে ২০০৭ পর্যন্তও দ্বিতীয় সর্বোচ্চ টানা ৪ বছর ৭ মাস এক নম্বর ছিল ব্রাজিলিয়ানরা।

এখন পর্যন্ত বিশ্বকাপে সব কয়টি আসরে অংশ নেওয়া দল ব্রাজিল। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশি ম্যাচ জয়ের রেকর্ড ব্রাজিলের।
বিশ্বকাপে কোনো পরাজয় ছাড়া টানা ১৩টি ম্যাচ জয়ের রেকর্ড এই দলের। বিশ্বকাপে সবচেয়ে বেশিবার কোয়ার্টার ফাইনাল খেলেছে ব্রাজিল ১৬ বার এবং সবচেয়ে বেশি ফাইনাল খেলছে ৭ বার।
বিশ্বকাপে টানা সবচেয়ে বেশি ম্যাচে ১টি করে হলেও গোল করার রেকর্ড রয়েছে ব্রাজিলের এবং বিশ্বকাপে টানা ১৮টি ম্যাচে গোল বঞ্চিত হয়নি একমাত্র ব্রাজিল।

ফুটবল বিশ্বকাপে আর্জেন্টিনার অর্জন সমূহ:
দলটি বিশ্বকাপে ৫ বার ফাইনাল খেলেছে তার মধ্যে ২ বার বিশ্বকাপ জয়ী হয়েছে।

কিন্তু কোপা আমেরিকায় শিরোপা জয়ে আর্জেন্টিনার থেকে অনেক পিছিয়ে ব্রাজিল এক্ষেত্রে আর্জেন্টিনার কোপা আমেরিকায় শিরোপা জয় ১৪ বার অপরদিকে ব্রাজিল ৯ বার।

একবিংশ শতাব্দীতে ব্রাজিলের অর্জনসমূহ:
২০০২তে বিশ্বকাপ জয়,
২০০৪ কোপা আমেরিকায় ৪-২ গোলে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান।
২০০৫ সালে কনফেডারেশন কাপে
৪-১ গোলে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান।
২০০৭ সালে কোপা আমেরিকায় ৩-০ গোলে আর্জেন্টিনাকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ান।
২০০৯,২০১৩ সালে কনফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়ান।
২০০৫,২০০৯,২০১৩ পরপর ৩ বার কনফেডারেশন কাপ চ্যাম্পিয়ান।
২০১৬ তে অল্ম্পিক বিজয়ী।
২০১৯ কোপা আমেরিকা কাপ বিজয়ী।

অপর দিকে একবিংশ শতাব্দীতে আর্জেন্টিনার অর্জনসমূহ:
এ সময়ে আর্জেন্টিনা কোনো শিরোপা জয়ী না হতে পারলেও হয়েছে রানার্স আপ।

২০০৪ কোপা আমেরিকা কাপে রানার্স আপ।
২০০৫ কনফেডারেশন কাপে রানার্স আপ।
২০০৭ কোপা আমেরিকায় রানার্স আপ।
২০১৪ বিশ্বকাপে রানার্স আপ।

লাতিন আমেরিকার ফুটবল পরাশক্তির এই দুদলের মধ্যে কে সেরা এ লড়াই দুদলের সমর্থকদের মধ্যে থাকে সব সময় বিতর্ক এবং উত্তেজনা।

পরিসংখ্যান বলছে ফুটবল বিশ্বকাপে ব্রাজিল অনেক এগিয়ে থাকলেও কোপা আমেরিকায় ব্রাজিল থেকে এগিয়ে আর্জেন্টিনা।
২০০৭ সালের ১৫ জুলাই কোপা আমেরিকার ফাইনালে দেখা হয়েছিল এই দুদলের তাতে ৩-০ গোলে পরাজিত হয়েছিল আর্জেন্টিনা। দীর্ঘ ১৪ বছর পরে একই আসরে আবারও আগামি ১১ জুলাই রবিবার ভোর ৬.০০ টায় কোপা আমেরিকা ফাইনালে মুখোমুখি হবে এ দুদল। তবে এবারের শিরোপা কে জয়ী হবে তা নিয়ে উত্তেজনা কাজ করছে দুদলের সমর্থকদের মধ্যে।


ফুটবলের বড় কোনো আসর আসলেই দুদলের সমর্থকরা তাদের প্রিয় দল নিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ট্রল, বিতর্ক, এমনকি সরাসরি মারামারির মতো ঘটনাও ঘটায়। অনেকে বড় বড় বিল্ডিং এ সমর্থনকৃত দলের পতাকার রং করে আবার অনেকে কয়েক কিলোমিটার দীর্ঘ পতাকা তৈরি করে।

তবে অনেকে আবার মনে করেন,ভীন দেশীয় খেলা পছন্দ হতেই পারে তবে সেটা বিনোদন পর্যন্ত সীমাবদ্ধ থাকবে,খেলাধুলা থাকবে খেলাধুলার পর্যায়ে তা নিয়ে এতোটা সিরিয়াস হয়ে মারামারির মতো ঘটনা ঘটানো নিন্দনীয় কাজ।


ব্রাজিল বনাম আর্জেন্টিনা লড়াইয়ে কে সেরা?
উত্তরে বলা যায়,যে যেই দল কে ভালোবাসে তার কাছে সেই সেরা। দর্শকরা তাদের প্রিয় দলকে কে সেরা বিবেচণা করে সমর্থন করে না,
তাদের সমর্থন করা স্থান ভালোবাসা থেকে।

100% LikesVS
0% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.