বিশ্বে এই প্রথম কোরআনিক ভিলেজ ও মসজিদ

৩৫

মোঃশফিনুর ইসলাম ঢাকাঃ

মালয়েশিয়া বিশ্বে এই প্রথম কোরআনিক ভিলেজ ও মসজিদ নির্মাণ করতে যাচ্ছে। এটি মালয়েশিয়ার রাজধানী কুয়ালালামপুরের সন্নিকটে দক্ষিণে পুত্রজায়ার টারাঙ্গানুতে নির্মিত হবে। এর স্থাপনার মাধ্যমে জ্ঞানের নগরীতে পরিণত হবে টারাঙ্গানু।ইতোমধ্যে এর নির্মাণ ব্যয়, অর্থের উৎস ও নির্মাণ স্থল বরাদ্দসহ বিভিন্ন বিষয় সুস্পষ্ট করেছে দেশটির সরকার। মালয়েশিয়ার মালয় মেইল, টাইম নিউজসহ অনেকে গণমাধ্যম তা প্রকাশ করেছে।রাজধানী কুয়ালালামপুরের দক্ষিণে অবস্থিত পুত্রজায়ায় পর্যটকদের আকর্ষণ করতে, কোরআনিক জ্ঞানের প্রচার ও প্রসারে এবং আধুনিক এ শহরে বিদেশিদের স্থায়ীভাবে বসবাসের সুন্দর পরিবেশ তৈরিতে এ উদ্যোগ গ্রহণ করেছে দেশটি। এটি নশরুল কুরআন বিশেষ স্থাপনার অংশ বিশেষ।

দেশটির ফেডারেল টেরিটরিমন্ত্রী আনুয়ার মুসা (Annuar Musa) এক টুইটবার্তায় মসজিদ ও কোরআনিক ভিলেজ নির্মাণের ঘোষণা দেয়। তাতে মসজিদ ও কোরআনি ভিলেজের একটি ছবিও পোস্ট করেন।

ইতোমধ্যে দেশটি এই কোরআনিক ভিলেজ ও মসজিদ নির্মাণে ২০ একর জায়গা বরাদ্দ দিয়েছে। এর নকশা করা প্রায় শেষ। আল্লাহর ইচ্ছায় আগামী বছর তথা ২০২১ সালের শুরুর দিকে এর নির্মাণ কাজ শুরু হবে বলে টুইটারে আশা প্রকাশ করেন এ মন্ত্রী।কোরআনিক এ নগরী ও মসজিদ নির্মাণে ব্যয় হবে প্রায় ১ হাজার ৫০০ মিলিয়ন মালয়েশিয়ান রিংগিত। যার অর্ধেক বিনিয়োগ করবে দেশটির সরকার আর বাকি অর্ধেক বিভিন্ন দাতাগোষ্ঠী ও শুভানুধ্যায়ীদের থেকে সংগ্রহ করা হবে।মালয়েশিয়ার পুত্রজায়ায় নির্মিত এ নগরী ও মসজিদ বিশ্বের প্রথম ও একমাত্র স্থাপনা বলেও দাবি করেছেন দেশটি। এ মসজিদ ও নগরীতে থাকবে ৫ হাজার লোকের নামাজ পড়ার ব্যবস্থা। কোরআনিক বিজ্ঞান ও ভবিষ্যদ্বাণীমূলক একটি কেন্দ্রও থাকে তাতে।এতে আরো থাকবে- ছাত্রাবাস, কমিউনিটি সেন্টার, শপিংমল ও সাংস্কৃতিক কেন্দ্র।

মন্ত্রী আরো জানান, ‌কোরআনিক এ ভিলেজ ও মসজিদটি মালয়েশিয়া সরকারের পাশাপাশি আরব বিশ্বের দেশ কুয়েত, ইরাক, তুরস্ক, সংযুক্ত আরব আমিরাত এবং ব্রুনাইয়ের জন্য উৎসর্গ করা হবে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.