বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নিউজিল্যান্ডের একপেশে জয়

৬২

 

বিশ্বকাপের উদ্বোধনী ম্যাচে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নিউজিল্যান্ডের একপেশে জয়

ক্রীড়া প্রতিবেদক:

ইংল্যান্ড:২৮২/৯(৫০ ওভার)
নিউজিল্যান্ড:২৮৩/১(৩৬.২ ওভার)
ফলাফল: নিউজিল্যান্ড ৯ উইকেটে জয়ী
সেরা খেলোয়াড়:রিচেন রবীন্দ্র

অবশেষে অনেক জল্পনা কল্পনার অবসান ঘটিয়ে শুরু হয়েছে বিশ্বকাপ ক্রিকেট। পাকিস্তান ও ভারতের মধ্যকার উত্তেজনা নিয়ে দর্শকদের একধরনের মানসিক টেনশন ছিল।তবে সবকিছু ছাপিয়ে বিশ্বকাপের আসর সময়মতো শুরু হলেও গত কয়েকদিনের বৃষ্টি কিছুটা হলেও ছন্দ পতন হয়েছে । উদ্বোধনী অনুষ্ঠান পরিত্যক্ত হয়ে বিশ্বকাপের ছন্দে ব্যাপক পতন না ঘটলেও আমেজের একটু পতন হয়েছে ।

এদিকে আহমেদাবাদের নরেন্দ্র মোদী ষ্টেডিয়াম যেন বিশ্বকাপ ক্রিকেট কে তামাশায় পরিণত করেছে ।১ লাখ ৩০ হাজার দর্শকের আসন বিশিষ্ট এই গ্যালারি ফাঁকা।অথচ সব টিকেট নাকি বিক্রি হয়ে গেছে ।খোদ ভারতের সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে চলছে টিকা টিপ্পনি।এতো বাজে এবং দর্শক শূন্য মাঠে বিশ্বকাপের খেলা হয়েছে এমনটা কেউ বলতে পারবে না ।এবার‌ই প্রথম এত বিশ্রী উদ্বোধনী ম্যাচ।কত ঘটা করে উদ্বোধনী অনুষ্ঠান করার ঘোষণা দেয়া হলেও শেষ পর্যন্ত তা বাদ দেয়া হয়েছে ।অথচ হ‌ওয়ার কথা ছিল উল্টো।খেলা পাগল ভারতের গ্যালারি ভর্তি থাকবে দর্শকদের হৈ হুল্লোড়ে । কিন্তু কি যে হলো গ্যালারি দর্শক শূন্য।

গত বিশ্বকাপের ফাইনালের দুই দল আজ আহমেদাবাদে দিবারাত্রির এই খেলায় অংশ নেয়।টসে জিতে নিউজিল্যান্ড ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়। ইংল্যান্ডের আগ্রাসী ক্রিকেট দেখার অপেক্ষায় ক্রিকেট বিশ্ব। কিন্তু নিউজিল্যান্ডের নিয়ন্ত্রিত বোলিং সেই সম্ভাবনাকে ম্লান করে দিয়েছে। নিউজিল্যান্ডের আঁটোসাঁটো বোলিং ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইনকে খুব একটা স্বাচ্ছন্দে থাকতে দেয় নি ।ডেভিড মালান দেখেশুনে খেললেও বেয়ারস্ট্রো একটু মারমুখী হতে চেয়েছিলেন কিন্তু ৪টি চার ও ১ টি ছয়ের সাহায্যে ৩৫ বলে ৩৩ রান করে স্যান্টনার বলে মিশেলের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফেরেন। কিন্তু মালান ও সুবিধা করতে পারেননি ২৪ বলে ১৪ রান করে হেনরির বলে উইকেট কিপার লাথামের হাতে ধরা পড়ে সাজঘরে ফেরেন।

তবে এবারের বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে প্রথম হাফসেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন জো রুট।তিনি ৫৭ বলে ২ টি চার ও ১ টি ছয়ের সাহায্যে অর্ধশত পূর্ণ করেন ।যদিও তিনি শেষপর্যন্ত ৮৬ বলে ৭৭ রান করে ফিলিপসের বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন।৭৭ রানের এই ইনিংসে ৪ টি চারের মার ও ১ টি ছয়ের মার ছিল । ইংল্যান্ডের উইকেট কিপার জস বাটলার রানের গতি বাড়াতে একটু মারমুখী হ‌ওয়ার চেষ্টা করলেও বেশিদূর আগাতে পারেননি।তিনি ৪২ বলে ৪৩ রান করে হেনরির বলে উইকেটের পিছনে লাথামের কাছে ক্যাচ দিয়ে মাঠ ছাড়েন ।তার ইনিংসে ২ টি করে চার ও ছয়ের মার ছিল।

ইংল্যান্ডের নীচের সারির ব্যাটসম্যনরা তেমন একটা সুবিধা করতে না পারলে শেষ পর্যন্ত ইংল্যান্ডের সংগ্রহ দাঁড়ায় ৯ উইকেটে ২৮২ রান। সম্পূর্ণ ব্যাটিং সহায়ক পিচে এই রান ইংল্যান্ডের জন্য যথেষ্ট হবে না ।কেননা নিউজিল্যান্ডের ব্যাটিং গভীরতা যথেষ্ট।নিউজিল্যান্ডের পক্ষে ম্যাট হেনরি ১০ ওভারে ৪৮ রান দিয়ে ৩ উইকেট সংগ্রহ করেন ।

২৮৩ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই উইল ইয়ং এর উইকেট হারিয়ে নিউজিল্যান্ড একটু ভড়কে গেলেও শক্ত হাতে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়েছে ডেভিন কন‌ওয়ে ও রবীন্দ্র।এইদুইজনের মারমুখী ব্যাটিং ইংল্যান্ডকে ছিন্নভিন্ন করে দেয় । মামুলি বোলারে পরিনত করে । মনে হয় যেন নিউজিল্যান্ড পাড়ার কোন দলের সাথে খেলছে ।কন‌ওয়ে এবং রবীন্দ্র উভয়েই সমান সংখ্যক ৩৬ বলে অর্ধশত রান করেছেন।কন‌ওয়ে তার অর্ধশত রান করতে ৮ টি চার ও ১ টি ছয়ের মার মারেন । অপরদিকে রবীন্দ্র ৭ টি চার ও ৩ টি ছয়ের মারের সাহায্যে অর্ধশত রান করেন । কিন্তু ইংল্যান্ডের বোলারদের ক্রমাগত হতাশার গভীরে ঠেলে দিয়ে ম্যাচটাকে একপেশে করে ছেড়েছেন এই দুইজন । তারমধ্যে কন‌ওয়ে ইংল্যান্ডের বোলারদের উপর নির্দয় ছিলেন মাত্রারিক্ত।তার আগ্রাসী ব্যাটিং ইংল্যান্ডকে অসহায় আত্মসমর্পণে বাধ্য করে ।

কতটা টর্নেডো চালালে ২৮২ রানকে মাত্র ৩৬.২ ওভারে শেষ করা যায় ?এবারের ভারতের পিচে প্রচুর রান উঠবে এমন একটা ধারণা আগে থেকেই আঁচ করা গেছে ।বিশেষ করে প্র্যাকটিস ম্যাচগুলোতে প্রচুর রান উঠা দেখে মনেই হয়েছে আইসিসি এবার বোলারদের জন্য ডেড পিচ তৈরি করেছে । আইসিসি সবসময়ই যেহেতু ভারতকে সুবিধা দিতে ব্যস্ত তাই ভারতের ব্যাটিং লাইনকে সামনে রেখেই ব্যাটিং সহায়ক পিচ তৈরি করেছে বলে অভিজ্ঞ মহলের ধারণা।তাই আজকের ম্যাচে ইংল্যান্ডকে কোন সুযোগ‌ই দেয়নি নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানরা। ফাঁকা গ্যালারিতে সামাণ্য কিছু দর্শক এই দানবীয় ব্যাটিং উপভোগ করেছেন । ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন ও যথেষ্ট শক্তিশালী।তাই তাদের সামনের ম্যাচগুলো আরো আক্রমনাত্নক হবে বলে ধারনা ।

আজকেও আক্রমনাত্নক ক্রিকেট খেলতে গিয়েই পিছিয়ে পড়েছে ইংল্যান্ডের ব্যাটিং লাইন আপ।নিউজিল্যান্ডের ডেভিন কন‌ওয়ে ৮৩ বলে ১৩টি চার ও ২ টি ছয়ের সাহায্যে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন এবং ১১৯ বলে ১৯টি চার ও ৩ টি ছয়ের সাহায্যে দেড়শত রানের মাইলফলক স্পর্শ করেন ।শেষ‌ পর্যন্ত তিনি ১২১ বলে ১৫২ রানে অপরাজিত থাকেন।অপরদিকে রবীন্দ্র ৮২ বলে ৯ টি চার ও ৪ টি ছয়ের সাহায্যে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন।শেষ পর্যন্ত তিনি ৯৬ বলে ১২৩ রান করে অপরাজিত থাকেন।দুই ব্যাটসম্যানের ব্যাটিং তান্ডবে মাত্র ৩৬ .২ ওভারে ২৮৩ রানের লক্ষ্যে পৌঁছে যায় নিউজিল্যান্ড। এবং ৯ উইকেটের বিশাল জয় নিয়ে মাঠ ছাড়েন ।রিচেন রবীন্দ্র ১ টি উইকেট ও ১২৩ রানে অপরাজিত থেকে সেরা খেলোয়াড় হিসেবে নির্বাচিত হন ।এই জয়ের ফলে নিউজিল্যান্ডের মধ্যে আত্নবিশ্বাস যথেষ্ট বেড়ে যাবে এবং গত বিশ্বকাপের ফাইনালে হারের কিছুটা উপশম হবে ।যদিও গত বিশ্বকাপের ম্যাচের সুপার ওভারের সিস্টেম যথেষ্ট বিতর্কে ভরা।তাই এবার সেই নিয়ম বাদ দিয়ে নতুন নিয়ম করা হয়েছে । যতক্ষণ জয় পরাজয়ের নিষ্পত্তি না হবে ততক্ষণ সুপার ওভারের খেলা চলতে থাকবে ।

100% LikesVS
0% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.