বিজয়ের মাসে কীর্তিমানদের স্মরণে আলোচনা সভা ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান

৪৩

মোঃ সজীব হোসাইন,ভালুকা, ময়মনসিংহঃ গতকাল ১৫/১২/২০২০ রোজ মঙ্গলবার ময়মনসিংহ জেলার ভালুকার উপজেলার হোছেন নগর ভিলায় তমদ্দুন মজলিস ময়মনসিংহ জেলা শাখার উদ্যোগে কীর্তৃমানদের স্মরণে আলোচনা সভা ও সম্মাননা প্রদান অনুষ্ঠান হয়েছে।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেনঃ মোঃ রফিক ভূঁইয়া খোকা, কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও সাধারণ সম্পাদকঃ তমদ্দুন মজলিস ময়মনসিংহ জেলা শাখা।

ভাষা আন্দোলনে গৌরবোজ্জ্বল ভূমিকা রাখায় স্বীকৃতি স্বরুপ সম্মাননা গ্রহণ করেনঃ ব্রিটিশবিরোধী, ভাষা সৈনিক, বীর মুক্তিযোদ্ধা, দেশবীর মোঃ হোছেন আলী খান বাদেশী।
প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেনঃ মোঃ মজিবুর রহমান শাকিল সমাজ সেবক ও শিক্ষানুরাগী- ভালুকা।

প্রধান আলোচক ছিলেনঃ মোঃ কবির হোসেন সরকার, প্রচার সম্পাদকঃ সেক্টর কমান্ডার্স ফোরাম মুক্তিযুদ্ধ ৭১, ময়মনসিংহ জেলা শাখা। আলোচক ছিলেনঃ(০১) মনিরুজ্জান মনির – সদস্য সচিবঃ মুক্তিযোদ্ধা সন্তান সংসদ, ভালুকা উপজেলা শাখা ও সচিবঃ ভালুকা পৌরসভা। (০২)মোঃ জহিরুল ইসলাম, সভাপতিঃ তমদ্দুন মজলিস মুক্তাগাছা উপজেলা শাখা।

বিশেষ অতিথি ছিলেনঃ (০১)বীর মুক্তিযোদ্ধা মোঃ হেলাল উদ্দিন, রাজনীতিবিদ(০২) প্রকৌশলী জিহাদ চৌধুরী, বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক (ময়মনসিংহ) কাব্যকথা সাহিত্য পরিষদ- কেন্দ্রীয় কমিটি। (০৩) ওলিউল্লাহ পাঠান, বিশিষ্ট সমাজ সেবক- ভালুকা (০৪) বাদেশী পুত্র মোঃ বিল্লাল হোসাইন উপদেষ্টাঃ তমদ্দুন মজলিস, ময়মনসিংহ জেলা শাখা। (০৫)মুক্তিযোদ্ধা সন্তান কবির হোসেন, সফল ঠিকাদার- ভালুকা। অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেনঃ ভি.পি মোঃ সজীব হোসাইন, সভাপতি – তমদ্দুন মজলিস ভালুকা উপজেলা শাখা।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই দেশবীর বাদেশীর নেতৃত্বে জাতীয় পতাকা উত্তলন করা হয়, এরপর শান্তির প্রতিক জোড়া কবুতর উড়ানো হয়। আলোচনা মঞ্চের আলোচনার শুরুতেই কোরআন তেলাওয়াত করেনঃ ক্বারী মোঃ নাঈম হোসাইন। এরপর সভাপতির স্বাগত বক্তব্যের পর অনুষ্ঠান সঞ্চালনা করেনঃ সঞ্জালক। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি সহ প্রায় সবার বক্তব্যে উঠে আসে দেশবীর বাদেশীর জীবনী। তারা সরকারের কাছে জুড়ালো দাবি জানান যে, “বৃহত্তর ময়মনসিংহের অন্যতম ভাষা সৈনিক মোঃ হোছেন আলী খান বাদেশী সাহেবকে যেন রাষ্ট্রীয়ভাবে সম্মানিত করা হয়।”

উল্লেখ্য এই ভাষাসৈনিক ভাষা আন্দোলনের সময় ভাষা মিছিলে সামনের সাড়িতেই ছিলেন। এছাড়াও তিনি বৃহত্তর ময়মনসিংহে ভাষা আন্দোলনের শক্তিবৃদ্ধি করতে আপ্রাণ প্রচেষ্টার সাথে কাজ করেছিলেন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় ময়মনসিংহের আফসার বাহিনীর প্রধান উপদেষ্টার দ্বায়িত্ব পালন করেছিলেন। ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনেও ছিল তার অনুপম ভূমিকা। একজন মুক্তি কমান্ডার এক অনুষ্ঠানে ২০১০ সালে তাকে বাদেশী ও দেশবীর উপাদি দিয়েছিলেন।

বক্তব্য শেষে সম্মাননা পত্র সংগ্রহণ করেনঃ দেশবীর বাদেশী। একই সাথে তমদ্দুন মজলিসের ময়মনসিংহ জেলা শাখার সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক স্বাক্ষরিত একটি পত্র গ্রহণ করেন- যার মাধ্যমে তাকে তমদ্দুন মজলিস ময়মনসিংহ জেলা শাখার উপদেষ্টা মণ্ডলীর সভাপতি করা হয়েছে। এরপর উপস্থিত অতিথিদের মাঝে বিতরণ করা হয় বাদেশী পরিবারের পক্ষ থেকে বাদেশী উপহার। সর্বশেষ মোনাজাত ও সভাপতির সমাপনি বক্তব্যের মধ্যদিয়ে অনুষ্ঠান সমাপ্ত হয়।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.