প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতির বিরুদ্ধে অনিয়মের অভিযোগ

২৫

জহিরুল ইসলাম,বগুড়াঃ বগুড়া সদরের লাহিড়ীপাড়া ইউনিয়নের পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে বরাদ্দকৃত দুই লক্ষ টাকা ক্ষুদ্র মেরামতের কাজ শেষ হতে না হতেই ৮০ হাজার টাকা উত্তোলন করে আত্নসাৎ এর অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে গিয়ে অত্র বিদ্যালয়ের অভিভাবক ও ম্যানেজিং কমিটির সাবেক সভাপতি সূত্রে জানা গেছে,

গত অক্টোবর মাসে পীরগাছা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির নির্বাচন ছাড়াই সকলের সমন্বয়ে কমিটি গঠন হয়। কমিটি গঠনের পর থেকেই বর্তমান কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম পান্না আকন্দের বিরুদ্ধে স্বেচ্ছাচারিতা ও ক্ষমতা অপব্যবহারের অভিযোগ উঠেছে।

সরকারী ভাবে বিদ্যালয়ের ক্ষুদ্র মেরামতের জন্য ২লক্ষ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়। এর মধ্যে বিদ্যালয়ের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি বিদ্যালয়ের ভবন এর উপরে বিভিন্ন মনিষি ও রাজনীতিবিদের ৪ জনের ছবি টাঙ্গানো, পূর্ব পাশে দেওয়াল রাইটিং এর কাজ করে ইতিমধ্যে ব্যাংক থেকে অনুমান লক্ষাধিক টাকা উত্তোলন করেছেন।

এর মধ্যে ১০/১৫ হাজার টাকা খরচ হয়েছে বলে ম্যানেজিং কমিটির সদস্যরা সাংবাদিকদের জানান। খরচের ক্রয় কমিটি গঠন করা হলেও তাদের কাছে থেকে কোন পরামর্শ না নিয়েই সভাপতি ও প্রধান শিক্ষক নিজেরাই কাজ করছেন। সভাপতি বলেন, আমি নিজেই কাজ করব। কারো কোন ক্ষমতা থাকলে আমার কাজ বন্ধ করতে এসো? শুধু তাই নয়, এলাকার কিছু সমাজ সেবক ব্যক্তি রহেন্দ্র, ভাদু, গজেন্দ্র গন বিদ্যালয়ে কয়েক শতক জমি দান করেছেন। তা বিদ্যালয়ের নামে রেকর্ডও করা হয়। বর্তমানে তাদের পুত্র ও ওয়ারিশগণ জমি উদ্ধারের জন্য মামলা করেন।

বিদ্যালয়ের সাবেক সভাপতি খলিলুর রহমান খলিল মামলা পরিচালনা করতে থাকলে বর্তমান সভাপতির সাথে জমির মালিকগণ মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে আতাত করে মামলায় হাজিরা দেওয়া বন্ধ করেন বলে সাবেক সভাপতি অভিযোগ করেন।
এব্যাপারে অত্র বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক হেলেনা বেগম এর সাথে মোবাইলে কথা বলার চেষ্টা করলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি। কমিটির সভাপতি রেজাউল করিম পান্না আকন্দের সাথে কথা বললে তিনি কোন বক্তব্য দেন নাই বরং তিনি বলেন, আপনারা সাংবাদিক আমার বিরুদ্ধে যত খুশি লেখতে থাকেন।

অভিভাবকেরা জানান, কাজ শেষ হতে না হতেই সভাপতি দূর্নীতি শুরু করেছে। তার খুঁটির জোর কোথায়? তার বিরুদ্ধে তদন্ত করে দ্রুত ব্যবস্থা গ্রহন করে বিদ্যালয়ের বাঁকী কাজ দ্রুত বন্ধ করে সরকারী ভাবে তদারকির মাধ্যমে কাজ করার আহ্বান জানান।
এব্যাপারে বিদ্যালয়ের অভিভাবক সদস্যরা বগুড়া জেলা ও সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার মহোদয়ের সু-দৃষ্টি কামনা করেন।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.