পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে হামলা ও আটকের ঘটনায় বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের তীব্র নিন্দা।

৩১

মেহেদী হাসান সজীব, ডেস্ক রিপোর্টঃ

রাজধানীর শাহবাগে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পুলিশের হামলা এবং শিক্ষার্থী আটকের ঘটনায় দেশব্যাপী বিভিন্ন ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়ে বিবৃতি প্রদান করা হয়েছে। ছাত্র সংগঠনের বিবৃতিতে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের ৪ দফা দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে গ্রেফতারকৃত শিক্ষার্থীদের নিঃশর্ত মুক্তি দাবি করা হয়।

পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে আটক শিক্ষার্থীদে মুক্তি দাবি করেছেন ছাত্র অধিকার পরিষদ। রাজধানীর শাহবাগে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের আন্দোলন থেকে ৫ শিক্ষার্থীকে আটকের পর আজ রবিবার রাতে সংগঠনটির ভারপ্রাপ্ত আহ্বায়ক মুহাম্মদ রাশেদ খাঁন সাক্ষরিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এ দাবি জানানো হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়েছে, গত ০৫ জানুয়ারি থেকে দেশের বিভিন্ন পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের শিক্ষার্থীরা ৪ দফা দাবি জানিয়ে আন্দোলন করে আসছে। ধারাবাহিক কর্মসূচির অংশ হিসাবে শাহবাগে সড়ক অবরােধ করে আন্দোলন করে শিক্ষার্থীরা।

‘‘এসময় পুলিশ শিক্ষার্থীদের উপর অতর্কিত হামলা ও লাঠিচার্জ করে ছত্রভঙ্গ করে দেয় এবং পাঁচ শিক্ষার্থীকে শাহাবাগ থানায় আটক করে পুলিশ। বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ শিক্ষার্থীদের উপর লাঠিচার্জ ও আটকের তীব্র নিন্দা জানাচ্ছে এবং একই সাথে আটককৃত শিক্ষার্থীদের নিঃশর্ত মুক্তি দেওয়ার আহ্বান করছে।’’

পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে নেয়ার আহ্বান জানিয়ে এতে বলা হয়েছে, বাংলাদেশ ছাত্র অধিকার পরিষদ সবসময় শিক্ষার্থীদের যৌক্তিক ও ন্যায়সঙ্গত দাবির পাশে রয়েছে এবং তাদের আন্দোলনের প্রতি পূর্ণ সমর্থন ও সংহতি জ্ঞাপন করে। পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের প্রায় ১২ লাখ শিক্ষার্থী যেসকল দাবি নিয়ে আন্দোলন করছে, সে দাবিগুলাের যৌক্তিকতা বিচার করে সমস্যা সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে।

এর আগে এক ফেসবুক লাইভে শিক্ষার্থীদের দাবি মেনে না নিলে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দিয়েছেন সংগঠনটি যুগ্ম আহবায়ক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদের সাবেক ভিপি নুরুল হক নুর।

তিনি বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ৪ দফা দাবি আমরা বিশ্লেষণ করেছি। তাদের সবগুলো দাবি অত্যান্ত প্রাসঙ্গিক। কর্তৃপক্ষ শিক্ষার্থীদের দাবির যৌক্তিকতা বিচার না করে তাদেরকে উল্টো হয়রানিমূলক ট্যাগ দিচ্ছে। তাদের মারধর করে আটক করে রাখা হয়েছে। আজ রাতের মধ্যে বিনা শর্তে আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তি দিতে হবে।
এছাড়াও দিনভর ছাত্র অধিকার পরিষদের বিভিন্ন কেন্দ্রীয় নেতারা ফেসবুক লাইভে এসে এসব দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে হামলা এবং আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবিতে প্রতিবাদ জানান।
এছাড়াও সন্ধ্যায় এক প্রেস বিবৃতিতে বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্র আন্দোলন ইসার পক্ষ থেকে তীব্র নিন্দা প্রতিবাদ জানানো হয়েছে। উক্ত বিবৃতিতে পলিটেকনিক শিক্ষার্থীদের দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করে আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তির দাবি জানিয়েছে।
তাছাড়া ও জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেসবুক পেইজ এবং সাইবার ৭১ নামক পেইজ থেকেও আটক শিক্ষার্থীদের মুক্তি এবং ৪ দফা দাবির সাথে একাত্মতা প্রকাশ করা হয়েছে।

শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত গ্রেফতারকৃত শিক্ষার্থীদের এখনও মুক্তি দেওয়া হয় নি এবং পুলিশের উপর হামলা, সরকারি কাজে বাঁধাদান সহ কয়েকটি অভিযোগে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.