পটুয়াখালী উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের দাবি ত্রান নয় বেড়িবাঁধ চাই

৩৪৭

মো: মেহেদী হাসান আশিক: প্রাকৃতিক দূর্যোগ পটুয়াখালী উপকূলীয় অঞ্চলের মানুষের নিত্য দিনের সঙ্গী। চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ না থাকায় প্রাকৃতিক জলোচ্ছ্বাস বা জোয়ারের পানিতে ব্যাপক ক্ষতির সম্মুখীন হয় সাধারণ মানুষ। আবার কিছু গ্রামে বেড়িবাঁধ থাকলেও তা মজবুত না হওয়ায় প্রাকৃতিক দূর্যোগে স্বাভাবিকের তুলনায় পানির মাত্রা বৃদ্ধি পেলে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে পানিতে প্লাবিত হয়ে জনজীবনে ব্যাপক দূর্ভোগ বয়ে আনে।

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের প্রভাবে এবং জোয়ারের পানি স্বাভাবিকের তুলনায় বেশি বৃদ্ধি পাওয়ায় পটুয়াখালী জেলার দশমিনা ও গলাচিপা উপজেলার কয়েকটি চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ না থাকায় পানিতে প্লাবিত হয়ে ফসলি জমি,মাছের ঘের বসত বাড়ি এবং গবাদি পশু সহ বিভিন্ন ভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন এছাড়া অনেক গ্রামের বেড়িবাঁধ মজবুত না হওয়ায় তা ভেঙ্গে পানিতে প্লাবিত হয়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছেন গ্রামের সাধারণ মানুষ। তাই তাদের দাবি ত্রাণ নয় বেড়িবাঁধ চাই।

প্রতিবছর ঘূর্ণিঝড় ও জলোচ্ছ্বাসের কারনে বেড়িবাঁধ না থাকায় মানুষ থাকে আতঙ্কে এবং পানিতে প্লাবিত হয়ে জনজীবনে অনেক ক্ষতির সম্মুখীন হয়। চরাঞ্চলের মানুষ দীর্ঘদিন ধরে বেড়িবাঁধের জন্য দাবি জানাচ্ছে। চরের কৃষকরা বহুবার বেড়িবাঁধের জন্য সরকারের কাছে স্মারকলিপি ও মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন। কিন্তু তাতেও কোনো সমাধান হয়নি এছাড়া যেসব এলাকায় বেড়িবাঁধ আছে তার মধ্যে অধিকাংশ বেড়িবাঁধ মজবুত না হওয়ায় জলোচ্ছ্বাসে তা ভেঙ্গে লোকালয় পানিতে প্লাবিত হয়।

এ বিষয়ে সাধারণ মানুষ মজবুত বেড়িবাঁধ,জিও ব্যাগ বা ব্লক করার দাবি জানিয়েছে।

এ বিষয়ে দশমিনা সদর ইউপি চেয়ারম্যান ইকবাল মাহমুদ লিটন জানান, জলোচ্ছ্বাসের লোনা পানিতে চরাঞ্চলে ফসলি জমি অনেক ক্ষতি হচ্ছে। তিনি বলেন চরহাদী বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য উপজেলা প্রশাসনকে জানিয়েছেন।

এ বিষয়ে বাঁশবাড়িয়া ইউপি চেয়ারম্যান আলতাফ আঁকন জানান, উপজেলা সমন্বয় সভায় চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধ নির্মাণের জন্য দাবি জানিয়েছি,এছাড়াও আজ ২৬ মে বিকালে পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তারা বাঁশবাড়িয়া লঞ্চঘাট ভেঙ্গে যাওয়া বেড়িবাঁধ পরিদর্শন আসেন তখন তাদের সাথে কথা হয় তাদেরকে যেসব বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে গেছে তা জিও ব্যাগ দিয়া নির্মাণের জন্য বলেছি পানি সম্পদ মন্ত্রনালয়ের কর্মকর্তারা জানান এ বিষয়ে তারা দ্রুত পদক্ষেপ নিবে।

এ বিষয়ে দশমিনা নির্বাহী কর্মকর্তা মো:আল-আমিন জানান, সংশ্লিষ্ট দপ্তরে চরাঞ্চলে বেড়িবাঁধের জন্য চিঠি দেওয়া হবে। এ বিষয়ে পটুয়াখালী-৩ আসনের সংসদ সদস্য এস. এম শাহজাদা জানান, এ ব্যাপারে পানি সম্পদ মন্ত্রণায়কে জানানো হয়েছে তারা বলেছেন এ বিষয় দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

93% LikesVS
7% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.