দিনাজপুরের বিখ্যাত ১ টাকার সিঙারার গল্প

১৪

ডেস্ক রিপোর্ট,মোনাজীর খানঃ ২৬ বছর ধরে দিনাজপুর জেলার চকবাজারে মিলছে মুখরোচক ১ টাকার সিঙারা।

বাবা মার দেয়া নাম শচীন ঘোষ, ছেলে বুড়ো সকলে চিনে শচীন কাকা নামে। বাড়ি পাশে একটি দোকান ঘড়,সেই দোকানে ১৯৯৫ সাল থেকেই ১ টাকা দরে সিঙারা বিক্রি করে আসছেন রসিক এই দোকানি।

তার ব্যবসা চলে সকাল ১১ টা থেকে দেড়টা অবধি। এই কয়েক ঘন্টার ব্যবধানে ক্রেতাদের ভীড়ে এক প্রকার মিলন মেলা বসে যায় তার দোকানের সামনে।

এখন তো ১ টাকার নোটের প্রচলন নেই, রয়েছে কয়েন। ১ টাকায় কোনো কিছু না মিললেও তিনি ভোক্তাসেবা দিয়ে আসছেন ২৬ বছর ধরে ১ টাকার সিঙারা ও নিমকি বিক্রি করেই।

সিঙারার মূল্য কম হলেও বিশেষত্ব আছে বলে শচীন ষোষ দাবি করে বলেন, অন্য দোকানের সিঙারা কিনতে গেলে ৫ টাকা লাগে কিন্তু এই সিঙারা দাম কম হলেও এতে পেটে বায়ুর সমস্যা যেমন হয় না, তেমনি এই সিঙারা ৪ থেকে ৫ দিন রেখে দিলেও নষ্টও হয় না। আমি প্রতিদিনের তেল প্রতিদিনই পরিবর্তন করে নতুন তেলে সিঙারা ভাজি।

শচীন ঘোষ আরও জানান, আমি প্রতিদিন ১০,০০০ সিঙারা ও নিমকি প্রস্তুত করি। ২৬ বছর ধরে এই ব্যবসা করে আসছি। এই ২৬ বছরে অনেক কিছুর দাম বেড়েছে, কিন্তু অধিক লাভের আশায় সিঙারার দামের সাথে আপোষ করিনি। আমি কেবল রয়ে যেতে চাই দিনাজপুর বাসীর হৃদয়ে।

এই সিঙারর কাঁচামাল হিসেবে তিনি আটা, ময়দা, তেল, আলু, পেঁপে, ক্যাপসিকাম, ধনে পাতা, কারিপাতা, বিভিন্ন ধরনের মশলা ব্যবহৃত হয়।

এই শিঙারা ক্রয়ে শুধু দিনাজপুরের মানুষই নয়, আসেন দেশের দূর-দূরান্ত থেকে মানুষও।

ক্রেতারা জানান, এই সিঙারা অনেক সুস্বাদু ও মানসম্মত। বাড়ির সকলেরি পছন্দ তাই আমরা প্রারাই এ সিঙারা ক্রয় করে থাকি। এতে কোনো প্রকার ভেজাল না থাকায় স্বাস্থ্যগত সমস্যা হয় না।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.