দলীয় প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতিসহ আহত-২,আটক-৮

১১

সঞ্জয় বৈরাগী, পিরোজপুর জেলা প্রততিনিধি: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় সোমবার রাতে দলীয় প্রতিপক্ষের হামলায় উপজেলা যুবলীগের সভাপতিসহ দুইজন আহত হয়েছেন। এসময় উপজেলা যুবলীগের অফিস ভাংচুর করা হয়। ঘটনার পরে পুলিশ অভিযান চালিয়ে ঘটনার সাথে জড়িত ৮ জনকে আটক করেছে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনতে শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। হামলার শিকার আহত যুবলীগ সভাপতি আবু হানিফ খান (৪৫) ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ কর্মী রানা মাল (২৮)কে উদ্ধার করে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসক রাতেই উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেরে বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন।

দলীয় অভ্যন্তরীন কোন্দল ও এলাকায় অধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে এ হামলার ঘটনা ঘটেছে বলে জানা গেছে। উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বর জানান, গত রবিবার স্বেচ্ছাসেবক লীগের এক নেতাকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করার ঘটনায় ছাত্রলীগের ১৭ নেতা-কর্মীর নামে থানায় একটি মামলা দায়ের করা হয়। ওই ঘটনায় পুলিশ একজনকে গ্রেফতার করে। এ নিয়ে বিবাধমান দুই গ্রুপ সোমবার বিকেলে পাল্টা পাল্টি প্রতিবাদ সমাবেশ করে। এসময় দুই গ্রুপের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দিলে রাত ৭টার দিকে মঠবাড়িয়া পৌর মেয়র রফি উদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস ও সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমান সমর্থিত ছাত্রলীগের একটি গ্রুপ হামলা চালিয়ে উপজেলা যুবলীগ সভাপতি হানিফ খানকে কুপিয়ে গুরুতর আহত করে। হামলায় স্বেচ্ছাসেবক লীগের কর্মী রানা আহত হয়।

এ সময় হামলাকারীরা উপজেলা যুবলীগ অফিস ভাংচুর করে।
পৌর মেয়র ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি রফি উদ্দিন আহম্মেদ ফেরদৌস হামলার ঘটনার সাথে তার সমর্থিত নেতাকর্মীদের জড়িত থাকার অভিযোগ অস্বীকার বলে জানান, বরিবারের একটি মারধরের ঘটনা ও থানায় মামলা দেওয়ার ঘটনায় সোমবার সন্ধ্যায় একই এলাকায় পাশাপাশি যুবলীগ ও ছাত্রলীগের দুটি আলাদা আলাদা প্রতিবাদ সভা চলছিল।

এ সময় হঠাৎ করে উভয় গ্রুপের উত্তেজিত কিছু নেতা-কর্মীদের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এতে যুবলীগ সভাপতি আহত হয়। মঠবাড়িয়া থানার ওসি (তদন্ত) আব্দুল হক জানান, দলীয় অভ্যন্তরীন কোন্দলের জের ধরে হামলার ঘটনা ঘটে। হামলায় উপজেলা যুবলীগ সভাপতি সহ দুই জন আহত হয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ ৮ জনকে গ্রেফতার করেছে। পৌর শহরে অতিরিক্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। পরিস্থিতি বর্তমানে স্বাভাবিক রয়েছে।

উল্লেখ্য, মঠবাড়িয়া উপজেলায় দীর্ঘদিন ধরে উপজেলা আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সংগঠনের মধ্যে অভ্যন্তরীন কোন্দল লেগে আছে। উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ও মঠবাড়িয়া পৌরসভার মেয়র রফিউদ্দীন আহম্মেদ, সাবেক উপজেলা চেয়ারম্যান আশরাফুর রহমান সমর্থিত গ্রুপ এবং উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আজিজুল হক সেলিম মাতুব্বর সমর্থিত গ্রুপের মধ্যে কোন্দল রয়েছে। আর জের ধরে উপজেলা যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগসহ বিভিন্ন সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের মধ্যে কোন্দল চলছে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.