তেলবাজি-(শেষ পর্ব) দ্রব্যমূল্যের দামের বৃদ্ধিতে তাদের কিছু করার নেই

১০১

মো: রফিক ভূঁইয়া খোকা,ব্যুরো প্রধান,ময়মনসিংহ: মসজিদের এক মিটিং-এ আমার এক ঘনিষ্ঠ বন্ধুর সাথে বসার সৌভাগ্য হয়েছিল।

আলোচনায় উপস্থিত এক ব্যক্তির প্রশংসা এমনভাবে করছেন মসজিদের ঈমাম মহাশয় যিনি একজন বড় মাপের আলেম ও ওয়ায়েজ যেন তিনি প্রশংসার কাব্যগ্রন্থ রচনা করে তার বন্দনা গীত গায়তেছেন। আমি তো হতবাক। কেননা এই সভার এক সপ্তাহ পূর্বে ঐ ব্যক্তি উক্ত ঈমামের সাথে মসজিদের ভেতর প্রকাশ্যে শতশত লোকসমক্ষে অসদাচরণ করেছে। আজ আলোচনায় বসে তার অনেক দান-খয়রাতের প্রতিশ্রুতিতে খুশিতে আত্মহারা হয়ে পরমুখাপেক্ষিতার দরুন অপমান বেমালুম ভুলে তেলবাজির আশ্রয়ে প্রশংসার বুলি আওড়ায়তেছে। এখানেই শেষ নয় এ সকল আলেম ও হুজুরদের এইভাবে তেল মারার কারণেই প্রথম ও দ্বিতীয় ঘটনার প্রশংসাপ্রাপ্ত ব্যক্তিদের জন্য ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানের সভাপতি-সেক্রেটারি হওয়ার রাস্তা সুগম হচ্ছে- সে দিকে তাদের ভ্রুক্ষেপও নেই। প্রশংসার তেলের বানে ভেসে খুশিতে গদগদকারি লোকদের ভারে প্রকৃত নামাজি ও সত্যনিষ্ঠ ব্যক্তিদের কদর দিনদিন তলানিতে যাচ্ছে। আমাদের বিশ্ব নবী ।

হযরত মোহাম্মদ (স) বলেন, ” জালেম বাদশাহর সামনে হক্ব (সত্য) কথা বলাই বড় জিহাদ।” অধিকন্তু কথিত সে সকল নেতা ও দানবীরদের হুজুরদের অনুচিত প্রশংসার ( তেল মারার) কারণে সকল অন্যায় -অনাচারে লিপ্ত থেকেও তারা জান্নাতের সার্টিফিকেট পেয়ে গেছে এরুপ ধ্যান-ধারণায় হাত-পা নাড়িয়ে অতি দাম্ভিকতায় ঘুরে বেড়ায়। তারাই এই তেলবাজির সুযোগে সমাজে, দেশে আরো শক্তিশালী আসনে অধিষ্ঠিত হচ্ছে দিনের পর দিন। যাহোক আমরা সাধারণ জনগণ তেল মারার যুগের খেঁটে খাওয়া শ্রমজীবী মানুষ -সকল ঝামেলা আমাদেরই, আমাদেরকেই পোহাতে হয়; হচ্ছেও তাই। এই তেলের যুগেও তেলসহ অন্যান্য দ্রব্যমূল্যের ঊর্ধ্বগতি জনমানবের জীবন আজ নাভিশ্বাস। এতে কারো কিছু যায় আসে না।

কেননা আমরা এ দেশের সচেতনমহল তেলবাজিতে মশগুল। এই তো সেদিন বর্তমান বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন, ‘দ্রব্যমূল্যের দামের বৃদ্ধিতে তাদের কিছু করার নেই।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.