ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটির প্রযুক্তি নির্ভর খাদ্য শিল্প বিষয়ক গ্রুমিং সেশনের আয়োজন করলো হাল্ট প্রাইজ

৩৩

আশরাফুল ইসলাম,স্টাফ রিপোর্টার-দৈনিক সাহসী কন্ঠ

শিক্ষার্থীদের জন্য ‘নোবেল প্রাইজ’ খ্যাত হাল্ট প্রাইজ প্রতিযোগিতার রেজিস্ট্রেশন চলবে ৪ই, ডিসেম্বর ২০২০ পর্যন্ত। প্রতি বছরের মতো এবারও বেশ জমজমাট ভাবে অনলাইনে এই প্রতিযোগিতা আয়োজনে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয় এর হাল্ট প্রাইজ আয়োজক কমিটি কাজ করে যাচ্ছে।

গত ১লা ডিসেম্বর, ২০২০ হাল্ট প্রাইজের প্রাথমিক গ্রুমিং-সেশন অনুষ্ঠিত হয়েছে। যেখানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ক্লাউড ক্রিয়েটিভ লিমিটেড এর প্রতিষ্ঠাতা, সিইও এবং হাল্ট প্রাইজের প্রফেশনাল স্পিকারস বাংলাদেশের সহকারী প্রতিষ্ঠাতা নাশিদ আলি। সেশনটির মূল আলোচ্য বিষয় জুড়ে তিনি হাল্ট প্রাইজে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তুলে ধরেছেন প্রযুক্তি নির্ভর খাদ্য শিল্পের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে। নতুন উদ্ভাবিত বিভিন্ন প্রযুক্তির মাধ্যমে কিভাবে খাদ্য খাতকে আরো অনেক বেশি উন্নত করা যায় তার নানা ধরনের কৌশল উপস্থাপন করেন। শিক্ষার্থীরা প্রযুক্তির সাথে খাদ্য বিষয়ক ব্যবসায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, মেশিন লারনিং, আইওটি ইত্যাদি বিষয়ে জানতে সক্ষম হয়েছে। সেশনের শেষে শিক্ষার্থীদের থেকে হাল্ট প্রাইজ সম্পর্কিত বিভিন্ন ধরনের প্রশ্নের সমাধান করা হয়েছে।যার মাধ্যমে তারা নিজেদের অজানা বিষয় নিয়ে দ্বিধামুক্ত হতে পেরেছে।

সেশনটিতে ডিপার্টমেন্ট অব ইনোভেশন এন্ড এন্টারপ্রেনারশীপ এর সম্মানিত দুজন শিক্ষক-শিক্ষিকা উপস্থিত ছিলেন। উনারা হলেন মোহাম্মদ রোকোনুজ্জামান রোমান এবং মৃত্তিকা শীল।
যেহেতু হাল্ট প্রাইজের রেজিস্ট্রেশন প্রায় শেষের দিকে তাই বিশ্ববিদ্যালয়ের হাল্ট প্রাইজ কর্তৃপক্ষ অংশগ্রহণকারীদের জন্য বিশেষ পরিকল্পনা নিয়েছে।যা অতি শীঘ্রই শুরু হয়ে যাবে।

এই বছরের হাল্ট প্রাইজ আয়োজন করেছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিপার্টমেন্ট অব ইনোভেশন এন্ড এন্টারপ্রেনারশীপ এবং নেট ইম্প্যাক্ট।

উল্লেখ্য, হাল্ট প্রাইজকে শিক্ষার্থীদের নোবেল প্রাইজ বলা হয়ে থাকে। যার নামকরণ করেন বাংলাদেশী নোবেল বিজয়ী ড. মোহাম্মদ ইউনুস। ২০১০ সাল থেকে জাতিসংঘ ও বিল ক্লিনটন ফাউন্ডেশনের যৌথ উদ্যোগে প্রতিযোগিতাটি নিয়মিত হয়ে আসছে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.