টানা ১৪ দিন লকডাউন শেষ-আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জে করোনা সংক্রমণের হার নিম্নগামী

৬৮

শরিফুল ইসলাম (মিল্টন),চাঁপাইনবাবগঞ্জ প্রতিনিধি: আমের রাজধানী চাঁপাইনবাবগঞ্জ জেলা প্রশাসনের দেয়া টানা ১৪ দিনের লকডাউন শেষ হয়েছে। এরই প্রেক্ষিতে ৭ জুন সোমবার রাত ১২ টা থেকে ১৬ জুন রাত ১২ টা পর্যন্ত করোনা পরিস্থিতি উত্তরণে নতুন বিধিনিষেধ জারি করেছে জেলা প্রশাসন। সোমবার বিকেলে জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে প্রেসব্রিফিং এর আয়োজন করে এ সিদ্ধান্তের কথা জানানো হয়।

জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটি ও সুশীল সমাজের সূধীজনদের সম্মতিক্রমে লকডাউন তুলে নতুন বিধিনিষেধ আরোপের উপর মত দেন। সরকারি নিয়মের পাশাপাশি জেলার দেয়া বিধিনিষেধ পালন করতে নাগরিকদের আহবান জানানো হয়েছে। এ ছাড়াও মানুষকে সচেতন করতে এবং স্বাস্থ্য বিধি মেনে চলতে গণমাধ্যম কর্মীদের ভূয়সী প্রশংসা করা হয়।

জেলা প্রশাসন ঘোষিত নতুন বিধিনিষেধ হচ্ছে –

সব ধরনের শপিং মল স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত চালু থাকবে। তবে ক্রেতা বিক্রেতাকে অবশ্যই মাস্ক পরিধান করতে হবে। সংশ্লিষ্ট মার্কেট কমিটি সংশ্লিষ্ট দোকানের মালিক তার অংশে উক্ত শারীরিক দূরত্ব ও মাস্ক পরিধান নিশ্চিত করবেন।

মোটরসাইকেল চালক ছাড়া অন্য কোন ব্যক্তি চলতে পারবে না। ব্যাটারিচালিত অটো গাড়িতে ২ জন যাত্রী যাতায়াত করতে পারবে। দুজনের বেশি নয়। চালকসহ ৩ জন।

সব ধরনের সাপ্তাহিক হাট আগামি ১৬ জুন বুধবার পর্যন্ত বন্ধ থাকবে। তবে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রবাদীর দোকান ও মনিহারি দোকান গুলো সকাল ৯ টা থেকে বিকেল ৫ টা পর্যন্ত খোলা থাকবে।

স্বাস্থ্যবিধি মেনে আম ক্রয়-বিক্রয় ও পরিবহন চালু থাকবে। তবে চাঁপাইনবাবগঞ্জ সদর, শিবগঞ্জ, গোমস্তাপুর, নাচোল, ভোলাহাট উপজেলায় অবস্থিত বৃহত্তম আম বাজার সমূহ এর নিকটস্থ স্টেডিয়াম/কলেজ/স্কুল মাঠে স্থানান্তর করতে হবে। উপজেলা প্রশাসন এ বিষয়ে ব্যবস্থা গ্রহণ করবে।

জনসমাবেশ ও রাজনৈতিক ধর্মীয় আচার অনুষ্ঠান, পিকনিক, জন্মদিন অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে। খাবারের দোকান ও হোটেল রেস্তোরায় সকাল ৬ টা থেকে রাত ১০ টা পর্যন্ত খাদ্য বিক্রয় ও সরবরাহ করতে পারবে। হোটেলে বসে খাওয়া যাবে না।

জেলার মধ্যে স্বাস্থ্যবিধি মেনে গণপরিবহন আসন সংখ্যা অর্ধেক যাত্রী নিয়ে চলাচল করতে পারবে। মাস্ক ছাড়া যাত্রী উঠালে চালক, হেলপার ও যাত্রীর বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

শিল্প-কারখানা ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় চালু থাকবে। কৃষিকাজ ও নির্মাণ কাজের সাথে জড়িত শ্রমিকগণ স্বাস্থ্যবিধি মেনে সকাল ৯ টা থেকে বিকাল ৫ টা পর্যন্ত নির্মাণ কাজ মাস্ক পরে চালাতে পারবে।

স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করে মসজিদের জুমার নামাজ ও ওয়াক্তের নামাজ পড়া যাবে। তবে ২০ জনের অতিরিক্ত মুসল্লি নিয়ে নামাজ পড়া যাবেনা।

100% LikesVS
0% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.