ঝাড়-ফু নিতে গিয়ে ধর্ষণের শিকার কলেজ ছাত্রী

২৬

মোঃ সাইয়েদুল সালেকীন ভূঞা,চান্দিনা উপজেলা প্রতিনিধিঃ
কুমিল্লার চান্দিনায় মাত্র এক দিনের ব্যবধানে ২টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটে। এর মধ্যে মাদ্রাসার হুজুরের কাছ থেকে ঝাড়-ফু নিতে গিয়ে কলেজ ছাত্রী এবং একই বাড়ির যুবকের কাছে বাক প্রতিবন্ধী ধর্ষিত হয়।

ওই ২টি ঘটনায় বৃহস্পতিবার (১৮ ফেব্রুয়ারী) রাতে চান্দিনা থানায় কলেজ ছাত্রী নিজে এবং বাক প্রতিবন্ধীর পিতা বাদি হয়ে পৃথক ২টি মামলা দায়ের করা হয়েছে। কলেজ ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় পুলিশ ধর্ষক মো. শাহপরান (২৭) নামে এক মাদ্রাসা হুজুরকে আটক করা হয়েছে।

আটক মো. শাহপরান চান্দিনা উপজেলার এতবারপুর গ্রামের মো. সুন্দর আলীর ছেলে। চান্দিনার একটি কলেজের দ্বাদশ ছাত্রী জানান- দীর্ঘদিন পেটের পীড়ায় ভূগার কারণে জেঠাতো ভাইয়ের পরামর্শে গত ১৪ ফেব্রুয়ারী হারং উত্তরপাড়া আল কারিম মাদ্রাসায় হুজুরের কাছে ঝাড়-ফু করার জন্য আসি। হুজুর প্রথম দিন পানিতে ফু দিয়ে আরও কয়েকদিন আসার জন্য বলেন। হুজুরের কথামত বুধবার (১৭ ফেব্রুয়ারী) সকালে মাদ্রাসায় আসার পর হুজুর জানায় আমাকে নাকি জ্বিনে ধরেছে। আমার উপর জ্বিনের চালান দেওয়ার কথা বলে তার অফিস কক্ষে নিয়ে দরজা আটকিয়ে জোর পূর্বক ধর্ষণ করে। এসময় আমি ডাক-চিৎকার দিলেও আসে-পাশে কোন বাড়ি-ঘর না থাকায় কেউ এগিয়ে আসিনি। পরবর্তীতে আমি আমার পরিবারকে বিষয়টি জানিয়ে বৃহস্পতিবার থানায় মামলা দায়ের করি।

অপরদিকে, গত ১৬ ফেব্রুয়ারী সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় চান্দিনা উপজেলার মহিচাইল ইউনিয়ের গাবগাছিয়া গ্রামে ১৮ বছর বয়সী এক বাক প্রতিবন্ধী প্রাকৃতির ডাকে সাড়া দিতে ঘর থেকে বের হওয়ার পর পাশ্ববর্তী বাড়ির লিমন মিয়াজী (২০) নামের এক যুবক জোর পূর্বক ধর্ষণ করে।

চান্দিনা থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) শাসমউদ্দিন মোহাম্মদ ইলিয়াছ জানান- পৃথক দুটি ধর্ষণের ঘটনার প্রাথমিক তদন্তে সত্যতা পাওয়া যায়। কলেজ ছাত্রী ধর্ষণের ঘটনায় মাদ্রাসার হুজুরকে আটক করা হয়েছে। প্রতিবন্ধী ধর্ষণের ঘটনার সাথে জড়িত ব্যক্তিকে আটক করার চেষ্টা চলছে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.