কিশোরগঞ্জ মুক্ত মঞ্চে ভাসমান লাইব্রেরি

আশরাফ উদ্দিন মোমেন,কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ বিজয়ের মাসে তরুনদের কাছে জ্ঞানে আলো ছড়িয়ে দিতে কিশোরগঞ্জ মুক্ত মঞ্চে পার্শ্বে তিন তরুন মিলে গড়ে তুলেছেন ভাসমান বইয়ের লাইব্রেরি । এ তরুনদের সবাই ছাত্র, একজন পড়াশোনা করছেন কুমিল্লা বিশ্ববিদ্যালয়ের একাউন্টিং বিভাগে অন্য দুজন কিশোরগঞ্জ গুরুদয়াল সরকারি কলেজেরে অনার্স একাউন্টিং বিভাগে ৪থ বর্ষের শিক্ষার্থী ।

করোনা মহামারীর পর থেকে শিক্ষা প্রতিষ্টান বন্ধ থাকায় থাকায় অবসর সময়টাকে কাছে লাগিয়ে বিপদগামী তরুণ-তরুণীদের মাঝে ইসলামের সু-মহান আদর্শকে ছড়িয়ে দিতে গড়ে তুলেছেন ইসলামি সাহিত্যের এক ভান্ডার।

শুধু স্কুল, কলেজ,বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠ্য বই মানুষের জ্ঞানের বিকাশ ঘটাতে পারেনা,জ্ঞানের পরিধি বাড়াতে প্রয়োজন বিভিন্ন সাহিত্যিকের বই।

এ ভাসমান লাইব্রেরি তে পাওয়া যায় বেশ কয়েকটি প্রকাশনীর বই। বিজয়ের মাসে তরুনদের এ উদ্যোগ কে স্বাগতম জানিয়েছেন বই প্রেমিরা। কিশোরগঞ্জ জেলা শহরে বইয়ের অনেক গুলো লাইব্রেরি থাকলেও সে সব লাইব্রেরিতে পাওয়া যায় না পর্যাপ্ত ইসলামী সাহিত্যের বই । এটি কিশোরগঞ্জের প্রাণকেন্দ্রে হওয়াতে বিকেলে ঘুরতে আশা মানুষদের নজর খাড়ছে, অনেকেই আগ্রহের সাথে কিনতে এবং দেখতে আসছেন। ক্রেতাদের সাড়া পাওয়ায় তিন উদ্বোগতারা ও বেশ আনন্দিত।উদ্বোগকতাদের একজন মোঃ তাহরিম আহমেদের সাথে আলাপকালে তিনি জানান তরুণ-তরুণীদের ভাল সাড়া পেলে তিনি একটি স্থায়ী লাইব্রেরি গড়ে তুলবেন। তিনি আরো জানান,`আমরা আসলে ভেবেছি মানুষ ইসলামিক বইগুলো যার যেটা লাগে কিনবে।কিন্তু সবাই যে এরকম এত্ত উৎসুক ছিলো, মনে মনে অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতেছিলো এরকম দোকানের জন্য সেটা ভাবি নি কখনো।

আরেক উদ্বোগতা সোহানুর রহমান জানান, লাব্রেরির ষষ্ঠ দিন মহান বিজয় হওয়া ক্রেতাদের ভাল সাড়া পেয়েছেন। তিন বন্ধুর আরেকজন মোঃ হাবিবুর রহমান জানান, ভবিষ্যতে আরো বড় পরিসরের করবেন।

তিন উদ্বোগতা জানান, আমরা পড়ালেখার পাশাপাশি এটা করতেছি,ফিউচারে চাকরির পাশাপাশি করার ইচ্ছে আছে।

50% LikesVS
50% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.