“করোনার চেয়ে এগিয়ে আত্মহত্যা”

৬৯

 

মোঃ জহিরুল ইসলাম

তরুণদের সংগঠন আঁচল ফাউন্ডেশনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, ২০২০ সালের ৮ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৮শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত সারাদেশে আত্মহত্যা করেছে ১৪ হাজার ৪৩৬ জন নারী-পুরুষ। এর পাশাপাশি আমরা যদি বাংলাদেশ পরিসংখ্যান ব্যুরোর ২০১৯ সালের আত্মহত্যার হিসাবটা দেখি, তবে দেখবো ২০১৯ সালেই দেশে আত্মহত্যা করেছে ১০ হাজারের বেশি।

তবে বেসরকারি হিসাবে দেশে আত্মহত্যার সংখ্যাটা আরো বেশি।এখন দেখা যাচ্ছে এই সময়ে অর্থাৎ ২০২০ এর ৮ মার্চ থেকে ২০২১ এর ২৮শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত করোনায় মৃত্যুবরণ করেছেন ১০ হাজার এর কাছাকাছি। অর্থাৎ গত এক বছরে করোনায় যতজন মারা গেছেন, তার চেয়ে বেশি মানুষ মরছে আত্মহত্যা করে।তবে আমি যতদূর জানি, করোনায় মৃত্যুর সংখ্যার হিসাবটা যেভাবে নথিভুক্ত করা হয়েছে, আত্মহত্যার হিসাবটা ততোটা গুরুত্বের সাথে নথিবদ্ধ করা হয়নি।কারণ গ্রাম-গঞ্জে প্রতিনিয়তই অনেক আত্মহত্যার ঘটনা ঘটে যা হিসাবের বা প্রকাশের বাহিরেই থেকে যায়।কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয়টা হলো,বিবাহ হওয়ার কিছুদিন পর নব বধূ আর তরুণ-তরুণীদের মাঝে আত্মহত্যার জোঁকটা আশংকাজনক হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে।এখন আমরা যদি আত্মহত্যা প্রতিরোধে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে মানুষের মাঝে নৈতিকভাবে তাদের মনোবল বৃদ্ধি করতে ব্যর্থ হই,তবে আমাদের এই জাতির মাঝে আত্মহত্যাই নতুন করোনা হিসেবে আবিভূত হবে।পরিশেষে আমি বলতে চাই,দিনদিন আত্মহত্যার সংখ্যা বাড়াটা আমাদের জন্য বড় ধরনের অশনিসংকেত। তাই আমি বলব,নীতিনির্ধারকরা যেন এই বিষয়টি গুরুত্বের সাথে বিবেচনা করেন।মনে রাখতে হবে “পালতোলা ঘুমন্ত নাবিকের জাহাজ কখনই তার গন্তব্য পৌঁছাতে পারে না”।

100% LikesVS
0% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.