অস্ট্রেলিয়াকে জবাব খেলায় দিল বাংলাদেশ

২০

মেহেদী হাসান সজীব, ডেস্ক রিপোর্ট:

শক্তিশালী অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে প্রথম টি-টোয়েন্টি তেই বাংলাদেশের ২৩ রানের দুর্দান্ত এক জয়। বাংলাদেশের অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে টি-টোয়েন্টির ইতিহাসে এটি প্রথম জয়। পাঁচ ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজের প্রথমটিতে স্বাগতিক বাংলাদেশের মুখোমুখি হয়েছে অস্ট্রেলিয়া। বাংলাদেশ সময় সন্ধ্যা ৬ টায় টস করতে নেমে অস্ট্রেলিয়া শুরুতেই টসে জিতে ফিল্ডিং করার সিদ্ধান্ত নেয়।

বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ে নেমে রীতিমতো বলের সাথে লড়াই করে খেলতে হয়েছে। শুরুতেই ৩.৩ ওভারে দলীয় ১৫ রানে জশ হ্যাজলউডের গতির বলে বোল্ড হয়ে ফেরেন সৌম্য। ৯ বলে মাত্র ২ রান করে ফেরেন এ ওপেনার।দলকে খেলায় ফেরানোর আগেই বিপদে পড়েন অন্য ওপেনার নাঈমও। দলীয় ৩৭ রানে ২৯ বলে দুই চার ও দুই ছক্কায় ৩০ রান করে অ্যাডাম জাম্পার স্পিনে বিভ্রান্ত হয়ে ফেরেন টাইগার এ ওপেনার। সাকিবের সঙ্গে ভালোই জুটি গড়েছিলেন মাহমুদউল্লাহ। সে জুটি ভাঙে ৩৬ রানে। ২০ বলে এক ছক্কায় ২০ রান করেন বাংলাদেশ অধিনায়ক। সাকিবের ফেরার আগে বড় শট খেলতে গিয়ে উইকেট দিয়ে আসেন নুরুল হাসান সোহান। সোহানের সংগ্রহ মাত্র ৪ বলে ৩ রান। বলের সাথে লড়াই করে অনেকটা ক্লান্ত হয়েই ৩৩ বলে তিন চারে ৩৬ রান করে যখন ফেরেন সাকিব তখন দলীয় সংগ্রহ ১৭ ওভারে ৫ উইকেটে ১০৪। এরপর মিচেল স্টার্কের চমৎকার ইয়র্কারে সোজা বোল্ড হয়ে ফিরলেন ৩ বলে ৪ রান করেই সাজঘরে শামীম। শেষ মুহূর্তে ঝড় ও ব্যাটিংয়ে ১৭ বলে তিন চারে ২৩ রান করেন আফিফ। সেই সুবাধে অস্ট্রেলিয়া কে ১৩২ রানের টার্গেট দেয় বাংলাদেশ।

অস্ট্রেলিয়া ১৩২ রানের টার্গেটে খেলতে নেমে দলীয় শূন্য রানে মেহেদীর বলে বোল্ড হয়ে সাজঘরে ফেরেন অ্যালেক্স কেয়ারি। পরের ওভারে নাসুম আহমেদের ঘূর্ণি ডেলিভারি কিছুটা এগিয়ে খেলতে গিয়ে জশ ফিলিপ হন স্ট্যাম্পিং। তৃতীয় ওভারে আরও এক উইকেট। এবার সাকিব নিজের প্রথম বলেই বোল্ড করেন ময়েসেজ হেনড্রিকসকে। সুইপ করতে গিয়ে বল টেনে নিয়ে উইকেট হারান হেনড্রিকস। চতুর্থ উইকেটে ৩৮ রানের জুটি গড়ে নাসুম আহমেদের দ্বিতীয় শিকার হন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক ওয়েড। তিনি ২৩ বলে মাত্র ১৩ রান করে ফেরেন। এরপরে কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে দলীয় ৭১ রানে ১০ বলে ৮ রান করে সাজগড়ে ফেরে এস্টন আগার। এর কিছুক্ষণ পরে দলীয় ৮৪ রানে দলের অন্যতম ও ভরসার আশ্রয়স্থল মিশেল মার্শ ও নাসুমের বলে শরিফুলের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান। ফেরার আগে তিনি করেন ৪৫ বলে ৪৫ রান। এর পর নিয়মিত বিরতিতে উইকেটের আসা যাওয়ার মিছিলে কেউই আর প্রতিরোধ গড়তে পারেন নি৷ বাংলাদেশের নাসুম আহমেদ ৪ ওবারে মাত্র ১৯ রানে নেন ৪ টি মুল্যবান উইকেট। এছাড়া মোস্তাফিজ ও শরিফুল ও নেন দুটি করে উইকেট আর সাকিব আর মেহেদী নেন একটি করে উইকেট। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ ২৩ রানের দুর্দান্ত জয় পেয়েছে।
এই ম্যাচে ম্যান অব দ্যা ম্যাচ নির্বাচিত হয়েছেন নাসুম আহমেদ।

100% LikesVS
0% Dislikes
Leave A Reply

Your email address will not be published.